মাছের বাজার দেখেছেন, শাক-সবজির বাজারও দেখেছেন। এমনকি বইয়ের বাজারও দেখে থাকতে পারেন। কিন্তু তাই বলে টাকার বাজার! রাস্তার ধারে সার দিয়ে একেবারে বস্তা বস্তা নোট নিয়ে লোকে বসে, এমন দৃশ্য দেখেছেন কখনও?

এমন বিচিত্র বাজারও আছে এই দুনিয়ায়। আফ্রিকার সোমালিয়ার সোমালিল্যান্ডে জাল বা নকল নোট নয়, ‘বিক্রি’ হয় একেবারে আসল নোট। খোলা রাস্তায় দিনের আলোয় লোকে বিনিময় করে নিয়ে যায় তাড়া তাড়া নোট। আর এ সবের জন্য কোনও বাড়তি পুলিশ বা রক্ষীবাহিনীর ব্যবস্থাও থাকে না।

নোটের বিকিকিনি

এমন অদ্ভুত এই বাজার গড়ে ওঠার পিছনে রয়েছে সোমালিল্যান্ডের আর্থিক পরিকাঠামো। সেখানকার মুদ্রাকে বলা হয় ‘শিলিং’। এই শিলিং-এর দাম বিপুল হারে পড়ে যাওয়ার ফলেই এই পরিস্থিতি তৈরি হয়।

সেখানে এখন মার্কিন ডলারের দাম ১০ হাজার শিলিং এর কাছাকাছি। মোটে ১০ ডলার খরচ করলে পাওয়া যাবে অন্তত ৫০ কেজি নোট! পকেটে ঢোকানো সম্ভব নয়, সেই নোট নিয়ে যেতে গেলে খানকতক বস্তা কিংবা আস্ত ঠেলা গাড়ির প্রয়োজন।

সোমালিল্যান্ডে এক মার্কিন ডলারের দাম ১০ হাজার শিলিং এর কাছাকাছি

এত কম মূল্য হওয়ার কারণেই সোমালিল্যান্ডের মুদ্রার গুরুত্ব ক্রমশ কমেছে। এমনকি চোর-ডাকাতরাও এই শিলিং চুরি করতে আগ্রহ হারিয়েছে অনেকদিন। পথের উপর ফেলে নোটের বিনিময়েও কোনও অসুবিধে নেই।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here