জিন তাড়ানোর নাম করে এক তান্ত্রিকের কাছে ধর্ষণের শিকার হয়েছে কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার এক কিশোরী। এ ঘটনায় মো. আবুল কাশেম (৬৫) নামে কথিত ওই তান্ত্রিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

কাশেম বরুড়া উপজেলার পয়ালগাছা ইউনিয়নের মথুরাপুর গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কাশেম প্রায় তিন বছর আগে সেনাবাহিনীর চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর নিজ এলাকায় কথিত জিন দ্বারা ঝাড়ফুঁকের মাধ্যমে বিভিন্ন রোগের অপচিকিৎসা দিয়ে আসছেন। এই অপচিকিৎসার আড়ালে প্রায় ছয় মাস ধরে একই ইউনিয়নের সুদ্রা গ্রামের এক কিশোরীকে তিনি একাধিকবার ধর্ষণ করেন। একপর্যায়ে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে তার মা এবং পরিবারের লোকজন বিষয়টি স্থানীয়দের জানান। এ ঘটনায় রোববার সন্ধ্যায় এলাকাবাসী আবুল কাসেমকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

এ বিষয়ে বরুড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ জানান, ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে বরুড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা হয়েছে। কথিত কবিরাজ আবুল কাসেমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here