পাকিস্তানের কোয়েটায় ইস্টার্ন বাইপাস এলাকায় একটি ভোটকেন্দ্রের কাছে বোমা হামলায় অন্তত ৩১ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ২০ জন। এর মধ্যে আটজনের অবস্থা গুরুতর। ধারণা করা হচ্ছে, নির্বাচন চলাকালীন পুলিশ ভ্যানকে লক্ষ্য করে এ হামলা চালানো হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে পুলিশ সদস্যরা ছাড়াও বেসামরিকরা রয়েছে।

আজ সকাল থেকে পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন ও চারটি প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রের ভেতরে ও বাইরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে রেকর্ড সংখ্যক সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডনের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এবার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সেনাবাহিনীর ৩ লাখ ৭১ হাজারের বেশি সেনা মোতায়েন থাকছে। একই সঙ্গে পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর আরও সাড়ে ৪ লাখের বেশি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশকে উদ্ধৃত করে ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার কোয়েটার ‘স্পর্শকাতর’ নির্বাচনি আসন হিসেবে বিবেচিত এনএ-২৬০ এর একটি স্কুলের কাছে বিস্ফোরণ হয়। ওই স্কুলটিতে তখন ভোটগ্রহণ চলছিলো। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় পুলিশ। বিস্ফোরণের কারণ জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে। কোয়েটা পুলিশের সন্দেহ, এটি আত্মঘাতী হামলা ছিল। স্কুলটিতে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here