কক্সবাজার ও রামুতে পৃথক দুটি পাহাড়ধসে একই পরিবারের ৪ শিশুসহ ৫ জন নিহত হয়েছে। আজ বুধবার ভোরে কক্সবাজার শহরে ও রামুর পানেরছড়ায় এই পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো— দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়া এলাকায় জামাল হোসেনের চার সন্তান আবদুল হাই (৮), খাইরুল (৬), পাপিয়া (১০) ও মর্জিয়া (১৪) এবং রামু উপজেলার মোর্শেদ আলম (৬)।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অফরুজুল হক টুটুল জানান, ভোরে শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়া এলাকায় জামাল হোসেনের বাড়ির পাশে পাহাড় তার ঘরের উপর ধসে পড়ে। এতে জামাল হোসেনের ৪ সন্তান মাটি চাপা পড়ে।

নিহতদের মামা খোরশেদুল আলম জানান, ভোরে উঠে নিহতদের মা বাড়ির বাইরে কাজ করছিলেন। এ সময় হঠাৎ বাড়ির পাশের পাহাড় ধসে ঘরের ওপর পড়ে। এতে ঘুমন্ত চার শিশু মাটির নিচে চাপা পড়লে মা চিৎকার করায় আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। তাৎক্ষণিক স্থানীয় মসজিদের মাইকেও ঘোষণা দিয়ে মানুষ ডাকা হয়। পরে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। কক্সবাজার সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তারা মারা যায়।

এদিকে রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের প্যাঁচারঘোনা এলাকায় পাহাড় ধসে মাটিচাপা পড়ে মোর্শেদ আলম (৬) নামে আরও এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ভোর সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মোর্শেদ ওই এলাকার জাফর আলমের ছেলে।

সদর হাসপাতালের পুলিশ বক্সের ইনচার্জ আপন হোসেন মানিক জানান, ভোরে ওই বাড়িটির ওপর পাহাড় ধসে পড়লে ৩ জন চাপা পড়ে। পরে আহতদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মোর্শেদকে মৃত ঘোষণা করেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here