ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে প্রথম ম্যাচে জিতলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ব্রাইটনের কাছে হেরে চাপে পড়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ফলে টটেনহ্যামের বিপক্ষে মঙ্গলবারের ম্যাচটি ছিল বেশ গুরুত্বপূর্ণ। তবে শেষ পর্যন্ত হতাশ হতে হয়েছে হোসে মরিনহোর দলকে। ৩-০ গোলে হেরেছে টটেনহ্যাম হটস্পারের সঙ্গে। ফলে ২৬ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বাজে শুরু হয় রেড ডেভিলদের।

খেলার প্রথমার্ধ গোলশূণ্য থাকার পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ম্যাচে ভাগ্য নির্ধারিত হয়ে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। মাত্র দুই মিনিটের ব্যবধানে দুইটি গোল হজম করতে হয় মরিনহোর শিষ্যদের। ৫০ মিনিটে হ্যারি কেন এবং  ৫২ মিনিটে লুকাস মোরার দ্রুত গোলে এগিয়ে যায় টটেনহ্যাম। ম্যাচে ৮৪-তম মিনিটে লুকাস ম্যান ইউ এর জালে আরও একবার বল জড়ালে বাকি সময়টুকু তখন শুধুই আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।

সুযোগ একবার অবশ্য পেয়েছিলো ম্যান ইউ। ড্যানি রোসের ব্যাকপাস থেকে রোমেলু লুকাকু প্রায় পরাস্ত করেও ফেলেছিলেন টটেনহ্যাম গোলরক্ষক হুগো লরিসকে। কিন্তু শেষমেষ ব্যবধান কমাতে পারেনি তারা। আর এর মধ্যে দিয়ে ১৯৯২-৯৩ মৌসুমের পর সবথেকে বাজেভাবে লীগ শুরু করলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

ম্যাচ শেষে মরিনহো সাংবাদিকদের বলেন, “ফুটবলে দর্শকেরাই সবথেকে ভালো বিচারক আর তারা খেলোয়াড়দের প্রতি দারুণ ছিলো”। তবে দলের পারফরম্যান্সে মোটেও বিচলিত নন এই কোচ। তিনি বলেন, “আমি শংকিত তবে আমি খেলোয়াড় এবং তাদের পারফরম্যান্স নিয়ে সন্তুষ্ট। আমাদের অন্য অনেক ম্যাচের থেকে অনেক বেশি সুযোগ আমরা আজকে তৈরি করেছিলাম”।

অন্যদিকে জয়ে উচ্ছ্বসিত টটেনহ্যাম কোচ মরিসিও পোচেটিনহো বলেন, “ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যান ইউকে হারানো খুবই কঠিন। প্রথমার্ধে তারাই প্রভাব বিস্তার করেছিলো তবে দ্বিতীয়ার্ধটা ছিলো আমাদের”।

ম্যাচে দুই গোলের জন্য ম্যাচে সেরা নির্বাচিত হয়েছেন লুকার মোরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here