বাংলাদেশসহ ৭ দেশের মধ্য পারস্পরিক সম্পর্ক ও সহায়তা বাড়াতে ৫ হাজার কোটি ডলারের মাস্টারপ্ল্যান হাতে নিয়েছে বিমসটেকের সদস্যরা।

নেপালে আয়োজিত চতুর্থ সম্মেলনের আগে সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এই মহাপরিকল্পনায় সায় দিয়েছেন। খবর কাঠমান্ডু পোস্টের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক- এডিবির এক প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে এসব পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার শুরু হচ্ছে বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টিসেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশনের (বিমসটেক)-এর চতুর্থ শীর্ষ সম্মেলন। এ উপলক্ষ্যে এরইমধ্যে ৭ দেশের প্রতিনিধিরা সেখানে হাজির হয়েছেন।

খবরে জানানো হয়, ৫ হাজার ডলার ব্যয়ে এই মহাপরিকল্পনার উদ্দেশ্য হচ্ছে দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক জোরদার করা।

বাংলাদেশ ছাড়া বিমসটেকের অন্য দেশগুলো হচ্ছে ভুটান, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ড।

নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ গেওয়ালি বলেন, সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সংযোগ স্থাপনে বিমসটেক ট্রান্সপোর্ট কানেক্টিভিটি মাস্টার প্ল্যান নিয়ে কাজ করছেন তারা। এ পরিকল্পনায় ১৬৭টি প্রকল্প রয়েছে। চলতি বছর সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই কর্মযজ্ঞ বাস্তবায়ন হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রদীপ গেওয়ালি বলেন, এই বিশাল পরিকল্পনায় অনেকগুলো দাতা সংস্থা আগ্রহী। এই প্রকল্পগুলো পরিচালনার জন্য আমরা এডিবি, বিশ্বব্যাংকসহ বেশকিছু সংস্থার কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েছি।

এডিবির পর্যালোচনায় রয়েছে পরিবহন, আন্তঃসীমান্ত সুবিধা, সমুদ্রপথে পরিবহন, আকাশপথে পরিবহন, অবকাঠামো উন্নয়ন, লজিস্টিক সুবিধা, মানবসম্পদ উন্নয়ন ও যোগাযোগের পরিকল্পনার কথা।

২০১৪ সালে বিমসটেক ট্রান্সপোর্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার অ্যান্ড লজিস্টিক স্টাডি নামের প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ১৬৭টি প্রকল্পের মধ্যে ৬৬টি প্রকল্পে জোর দেওয়া হয় তাতে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here