আজ সিলেট সার্কিট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ইভিএম এর ব্যাপারে অবান্তর অভিযোগ করা হয়েছে। হেরে গেলে কারচুপির অভিযোগ তোলার জন্যই কি ইভিএম চান না? এই পদ্ধতিতে অজুহাতের কোনো সুযোগ নাই বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, নিরপেক্ষ সরকারের থেকেও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন বেশি দরকার। বিএনপির আচরণ, কথা-বার্তায় মনে হয়, তারা খুশি হবে ২০০১ সালের মতো যদি ২০১৮ সালের নির্বাচন হয়, তারা ওই ধরনের মোটিভেটেট নির্বাচন চায়। জনগনের প্রতি আস্থা না থাকাতেই শর্ত দিচ্ছে বিএনপি, জনগনের প্রতি আস্থা থাকলে এতো শর্ত কেন?

এছাড়া তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন ৫ সদস্যের, একজন ভিন্নমত দিতেই পারেন, এটা গণতান্ত্রিক চর্চা, জটিলতা নয়।

উল্লেখ্য যে, ইভিএম ব্যবহারের জন্য আরপিও সংশোধনের সিদ্ধান্তে আপত্তি জানিয়েছিলেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। আর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন জনগণের আস্থা হারিয়ে যন্ত্রের ওপর ভর করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে সেখানে আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সুবহান গোলাপ সহ সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here