সিরিয়ার গোলান মালভূমিতে তৎপর বিদেশি মদদপুষ্ট তাকফিরি সন্ত্রাসীদেরকে বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ দিয়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইল। দখলদার ইসরাইলের সামরিক বাহিনী একথা স্বীকার করেছে।

সোমবার ইসরাইলের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, ২০১৬ সালে শুরু হওয়া কথিত ‘অপারেশন গুড নেইবার’র আওতায় সন্ত্রাসীদেরকে সিরিয়ার সেনাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য নিয়মিতভাবে হাল্কা অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থ দেয়া হয়েছে যাতে সন্ত্রাসীরা আরো অস্ত্র কিনতে পারে।

অস্ত্র ও অর্থের পাশাপাশি ইসরাইলি সেনারা সন্ত্রাসীদেরকে এক হাজার ৫২৪ টন খাদ্য, ২৫০ টন কাপড়, নয় লাখ ৪৭ হাজার ৫২০ লিটার জ্বালানি, ২১টি জেনারেটর এবং প্রচুর পরিমাণে চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়েছে। ফুরসান আল-জুলান গোষ্ঠীসহ গোলানের অন্তত সাতটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে ইসরাইল এসব অস্ত্র, অর্থ এবং অন্যান্য সহযোগিতা দিয়েছে। কথিত ফ্রি সিরিয়ান আর্মির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত এ গোষ্ঠীকে প্রতি মাসে পাঁচ হাজার ডলার নগদ অর্থ দিয়েছে ইসরাইল।

গত ২৩ আগস্ট সিরিয়ার সেনারা দখলদার ইসরাইল সীমান্তের কাছে কুনেইত্রা প্রদেশে একটি ফিল্ড হাসপাতালের সন্ধান পায়। ইসরাইলের তৈরি চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়ে জাবহাত ফতেহ আশ-শাম সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হাসপাতালটি পারিচালনা করে আসছিল। জাবহাত ফতেহ আশ-শাম হচ্ছে সাবেক নুসরা ফ্রন্টের পরিবর্তিত নাম। এর আগে গত ২৭ জুলাই গোলান মালভূমিতে নুসরা ফ্রন্টের আরেকটি হাসপাতালের সন্ধান পেয়েছিল সিরিয়ার সেনারা; সেটাও ইসরাইলের চিকিৎসা সরঞ্জাম দিয়ে পরিচালিত হচ্ছিল। এছাড়া, আহত সন্ত্রাসীদেরকে ইসরাইলের হাসাপাতালে চিকিৎসা দেয়াও হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here