সংবিধান অনুযায়ী অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন বদ্ধপরিকর বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।

বুধবার (০৫ সেপ্টেম্বর) সকালে রাজধানীর একটি হোটেলে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর নির্বাচন কমিশনারদের সংগঠন-ফেমবোসা’র নবম সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

এবার সম্মেলনের প্রতিপাদ্য ‘জবাবদিহি ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনী প্রক্রিয়া’। এ বছর সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানর নির্বাচন কমিশনের ২১ জন প্রতিনিধি।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নিয়ে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন স্বচ্ছ করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন, আরপিও সংশোধনের উদ্যোগও নিয়েছে কমিশন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আফগানিস্তান নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান ও ফেমবোসা’র বর্তমান চেয়ারপারসন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা বলেন, ‘স্বচ্ছ নির্বাচনী ব্যবস্থা ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময়ে ভূমিকা রাখতে পারে সার্কভুক্ত দেশগুলো। এ সম্মেলন থেকে যেসব অভিজ্ঞতা অর্জন করা হবে তা আগামী নির্বাচনে কাজে লাগানো যাবে।’

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘সামনে একাদশ জাতীয় নির্বাচন। বাংলাদেশের শক্তিশালী গণতন্ত্র চর্চায় আরপিও সংশোধনী এবং সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন আয়োজন করতে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সব সময় প্রস্তুত। তারা একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দেশবাসীকে উপহার দিতে পারবে।’

এসব সেশনে অংশগ্রহণকারীগণ নির্বাচনের বিভন্ন বিষয়ে আলোচনা করবেন। বাংলাদেশ হতে ২০১০ সালে ফেম্বোসার যাত্রা শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে ২০১১ সালে পাকিস্তান, ২০১২ সালে ভারত, ২০১৩ সালে ভুটান, ২০১৪ সালে নেপাল, ২০১৫ সালে শ্রীলংকা, ২০১৬ সালে মালদ্বীপ ও ২০১৭ সালে আফগানিস্তানে সংস্থাটির বাৎসরিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। দেশের নামের বর্ণনাক্রমে ঘুরে এসে ২০১৮ সালে বাংলাদেশে নবম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here