প্রীতি ম্যাচের আগুনে ফর্ম ধরে রেখেছে ব্রাজিল। রাশিয়া বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্যর্থতার পর নিজেদের নতুন করে চেনাচ্ছে সেলেসাওরা। এল সালভাদরকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে তিতের ব্রাজিল।

নতুন করে চেনানোর মিশনে দল ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনায় ছিলেন তিতে। অভিষিক্তের ছড়াছড়ি ছিলো ম্যাচে। এল সালভাদর র‌্যাংকিংয়ের ৭২তম দল বলেই পরখ করে দেখার সুযোগ ছিল। সুযোগ পান গোলকিপার নিতো, ফুলব্যাক এদের মিলিতাও। একই ভাবে শুরুর একাদশে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামা সেন্টার ফরোয়ার্ডে রিচারলিসনের দেখা মেলে।

এই নতুনদের নিয়ে আক্রমণ শাণিয়েছেন অধিনায় নেইমার। প্রথম গোল করে পথটা দেখিয়ে দেন তারকা  এই ফরোয়ার্ড। দ্বিতীয় মিনিটে বাজেভাবে ফাউলের শিকার হন রিচারলিসন। স্পট কিক থেকে লিড এনে দেন পিএসজি ফরোয়ার্ড।

১৬ মিনিটেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে ব্রাজিল। নেইমারের পাস থেকে দূরপাল্লার দুর্দান্ত বাঁকানো শটে লক্ষ্যভেদ করেন রিচার্লিশন।ছয় মিনিট পর নেইমারের শট ক্রস বারে লেগে ফিরে আসে। তবে ৩০ মিনিটে ব্যবধান বাড়ায় দলটি। নেইমারের পাস থেকে ডি বক্সের সামান্য বাইরে থেকে গড়ানো শটে বল জালে জড়ান ফিলিপ কৌতিনহো।

৩৯ মিনিটে আবার গোল পেতে পারতেন নেইমার। অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে বল পেয়ে গোলরক্ষককে একা পেয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বেশ সময়ও পেয়েছিলেন। কিন্তু গোলরক্ষককে কাটাতে গিয়ে ভুল করে ফেলেন তিনি। ফলে গোল করার সুবর্ণ সুযোগ মিস করেন এ পিএসজি তারকা। তিন মিনিট পর ডি বক্সের মধ্যে ডাইভ দিয়ে হলুদ কার্ড দেখেন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে গোল পেতে পারতো আল সেলভেদর। তবে সতীর্থের বাড়ানো বল ঠিকভাবে পা লাগাতে পারেননি ডেনিস পিনেদা। ৫০ মিনিটে ডি বক্সের মধ্যে প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারকে কাটাতে গিয়ে পড়ে যান কৌতিনহো। তা থেকে বল পেয়ে যান রিচার্লিশন। তার কোণাকোণি শট জালের ঠিকানা খুঁজে পেলে ব্যবধান আরও বাড়ায় ব্রাজিল। নয় মিনিট দারুণ শট নিয়েছিলেন বদলী খেলোয়াড় এভারটন। তবে অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

৬০ মিনিটে উইলিয়ানের শট রুখে দেন সালভেদর গোলরক্ষক হেনরি হারনান্দেজ। পরের মিনিটে আবারো রুখে দেন নেইমারের শট। ৬৯ মিনিটে আবার দুর্দান্ত হারনান্দেজ। এবার বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে ফিরিয়ে দেন লুকাস পাকুয়েতার দূরপাল্লার শট।৭২ মিনিটে দুরূহ কোন থেকে দারুণ শট নিয়েছিলেন উইলিয়ান। কিন্তু এবারও তাকে গোলবঞ্চিত করেন গোলরক্ষক।

৮৩ মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বলা জালে জড়াতে পারেননি এভারটন। তবে ম্যাচের সময়ে গোল আদায় করে নেয় সেলেকাওরা। এবার নেইমারের কর্নার থেকে দারুণ হেডে লক্ষ্যভেদ করেন মার্কুইনোস। ফলে ৫-০ গোলের দারুণ জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here