আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর ১৪তম এশিয়া কাপের পর্দা উঠছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে। বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার শেষবারের মুখোমুখি নিশ্চয় ভোলেনি শ্রীলঙ্কা। যে ম্যাচের পরথেকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের শুভাকাঙ্ক্ষী শ্রীলঙ্কার দর্শকেরা দেখিয়েছিল ভিন্নরূপ। সেই নাটকীয় ম্যাচের নায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের স্মৃতিতে বারবার ফিরে আসছে সে ম্যাচ। রোমাঞ্চকর সে ম্যাচ জিতে নিদাহাস ট্রফির সে ম্যাচ জিতে বাংলাদেশ পৌছেছিল ফাইনালে।

একটি ম্যাচ কখনো কখনো শুধুই একটা খেলার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে না, উত্তাপ ছড়িয়ে সেটি পৌছে যায় খ্যাপাটে এক স্নায়ুযুদ্ধে। তেমনি একটি ম্যাচ ছিল নিদাহাস ট্রফির গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কার সাথে বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ। ১৬ মার্চ যে ম্যাচের সমীকরণে ফাইনালে যেতে জয়ের বিকল্প ছিলনা দু’দলেরই সামনে। সেই ম্যাচের শেষ ওভারে নো বল বিতর্কে ভেস্তে যেতে বসেছিল ম্যাচ।

বিতর্কের শুরু শেষ ওভারে আম্পায়ারের পরপর দুই বলে ওভার বাউন্সের নো বল না দেওয়া নিয়ে। প্রতিবাদ জানাতে মাহমুদউল্লাহ ছুটলের আম্পায়ারের কাছে। ভ্রুক্ষেপ করল না আম্পায়ার, এবার প্রতিবাদ এল মাঠের বাইরে থেকে। রিপ্লে বলে দিচ্ছে পরিস্কার নো বল ছিল এটি। রাগ নিয়ন্ত্রন করতে পারলেন না অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইশারা করলেন মাঠের দু’ব্যাটসম্যানকে উঠে যাওয়ার জন্য। তবে চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলেন সাইলেন্ট কিলার মাহমুদউল্লাহ। ২ বলের ৬ রানের সমীকরণে বল গ্যালারিতে আছড়ে ফেলে কোবরা ড্যান্সের মাধ্যমে জবাব দিয়েছিলেন তিনি। পরে গোটা দল নেচেছিল কোবরা নাচ।

সেই শ্রীলঙ্কার সাথে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচ বাংলাদেশের। নিশ্চয় শ্রীলঙ্কা চাইবে প্রতিশোধ নিতে। আর এটা নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত মাহমুদউল্লাহ। দুবাইয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় জানান,

‘মাত্র কয়েক মাস আগে নিদাহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে আমাদের দারুণ কিছু স্মৃতি ছিল। তবে শ্রীলঙ্কা শক্তিশালী দল এবং তারা খুব ভালো ক্রিকেট খেলছে। তাদের হারাতে হলে আমাদের সেরাটা খেলতে হবে। আমরা দেশে খুব ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। আশা করি ভালো কিছুই হবে।’

বাংলাদেশ ক্রিকেটকে এগিয়ে নিচ্ছেন পঞ্চপান্ডব। পঞ্চপান্ডবের একজন মাহমুদউল্লাহ। এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচ নিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে এশিয়া কাপে কিছু করার চেষ্টা করব। দলের জন্য অবদান রাখতে পারলে ভালো লাগে, সেই ভালো লাগা আরও বেড়ে যায় যদি দল জেতে। ব্যাপারটা সহজভাবে দেখতে চাই এবং যতটা সম্ভব ভালো করতে চাই। সত্যি বলতে সব দলই এখন ভালো ক্রিকেট খেলছে। প্রতিটি দলই গুরুত্বপূর্ণ। স্বস্তিতে থাকার সুযোগ নেই। আর আমাদের ম্যাচ ধরে ধরে এগোতে হবে। এতে করে প্রথম পর্বে ভালো কিছু করতে পারব।’

এবারের এশিয়া কাপ বসবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশীদের অবস্থান। তাই গ্যালারিতে লাল-সবুজের সংখ্যাগরিষ্ঠতা বেশি থাকবে এটা নির্দ্বিধায় বলা যায়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here