লঘু অপরাধে কারাবন্দি বিভিন্ন মামলার ১৪২ জন কয়েদি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল রোববার রাত ১০টার পর সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। বাংলাদেশে একইদিনে কোনো কারাগার থেকে এত সংখ্যক কয়েদির মুক্তি পাওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম।

গতকাল বিকালে তাদেরকে আদালত থেকে জামিন দেওয়া হয়। মুক্তি পাওয়ার পর তারা প্রধানমন্ত্রীকে তার এ মহৎ উদ্যোগের জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার সূত্রে জানা গেছে, লঘু অপরাধে অভিযুক্ত বিভিন্ন মামলার ১৪২ জন আসামিকে রোববার সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত, সিলেট জেলা দায়রা জজ আদালতসহ বিভিন্ন আদালতে হাজির করা হয়। এসব আসামি মহানগর আইনে চুরি, ছিনতাই, পতিতাবৃত্তি প্রভৃতি অপরাধে অভিযুক্ত ছিলেন। আদালতে এসব আসামি নিজেদের দোষ স্বীকার করেন। তারা ভবিষ্যতে সঠিক পথে চলার অঙ্গীকার করেন।

পরে আদালত মানবিক দিক বিবেচনা করে সব আসামির জামিন মঞ্জুর করেন। এছাড়া কিছু আসামির সাজার মেয়াদ পেরিয়ে যাওয়ায় তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি বিশেষ মানবিক উদ্যোগ নিয়েছেন। যারা লঘু অপরাধ করে কারাগারে আছেন, তারা যদি দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চান ও ভালো পথে চলার অঙ্গীকার করেন, আর তাদের কারাজীবন সন্তোষজনক হয় তাহলে মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে তাদেরকে যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় মুক্তি দেওয়া যেতে পারে। প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগের প্রথম বাস্তবায়ন ঘটলো সিলেটে।

সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার আব্দুল জলিল বলেন, মুক্তি পাওয়া ১৪২ আসামি আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থন করলে আদালত তাদেরকে জামিন প্রদান করেন। অনেকে মামলা থেকেও অব্যাহতি পেয়েছেন। দেশে এই প্রথম কোনো কারাগারের এতজন আসামি একসঙ্গে জামিন লাভ করলেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here