বিশ্বের বিভিন্ন দেশে খেলা শীর্ষ ফুটবলারদের পুনর্মিলনীর একটা সুযোগ করে দেয় উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। যে কারণে ফুটবল রোমান্টিকদের এই আসরের প্রতি একটা আলাদা নজর থাকে। সেই সব ক্লাব ফুটবল ভক্তদের অপেক্ষার পালা শেষ হচ্ছে আজ।

ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্ব›দ্বীতামূলক আসরের প্রথম দিন মাঠে নামছে লিওনেল মেসির বার্সেলোনা, নেইমার-এমবাপের পিএসজি, অঁতোয়ান গ্রিজম্যানের অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ও মোহাম্মদ সালাহ-ফিরমিনোর লিভারপুল। বর্তমান ও টানা তিনবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের উয়েফা লিগ শুরু হবে আগামীকাল থেকে।

এবারের টুর্নামেন্টে সবচেয়ে কঠিন গ্রুপ বলতে হবে গ্রুপ ‘বি’কে। ‘গ্রুপ অব ডেথ’ যাকে বলে। যে গ্রæপে বার্সেলোনার সঙ্গে রয়েছে সাবেক ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন ইন্টার মিলান, প্রিমিয়ার লিগের নবশক্তি হয়ে ওঠা টটেনহাম হটস্পার ও নেদারল্যান্ডস চ্যাম্পিয়ন পিএসভি আইন্দোভেন। বার্সেলোনা আজ আতিথ্য দেবে পিএসভিকে। একই সময়ে ইন্টারের মাঠে খেলতে নামবে হ্যারি কেইনের টটেনহাম।

ইউরোপিয়ান ফুটবলে পিএসভি বড় নাম না হলেও বার্সার বিপক্ষে কিন্তু তাদের জয়ের ইতিহাস রয়েছে। সব মিলে ৬ ম্যাচে দুটি জয় বার্সার, একটি পিএসভির, বাকি তিন ম্যাচ ড্র। তবে দুদলের সাম্প্রতিক পারফর্মান্সে এগিয়ে কাতালান দলটিই। ইউরোপিয়ান ফুটবলে ঘরের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে তারা টানা ২৬ ম্যাচ হারেনি, জয় ২৪ ম্যাচে, বাকি দুটি ড্র। লিগে শতভাগ জয় নিয়ে মেসির নেতৃত্বে ইউরোপিয়ান মৌসুম শুরু করতে যাচ্ছে বার্সা। ওদিকে পিএসভিরও গ্রæপ পর্বের শেষ ছয় ম্যাচে কোন জয় নেই।

অবশ্য এবারের মৌসুমটা দারুণভাবে শুরু করেছে পিএসভি। বাছাই পর্বের দুই ম্যাচ ও ডাচ লিগের তিনটি মিলে টানা পাঁচ ম্যাচে জয়। ডাচ লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে তো প্রতিপক্ষকে ৭-০ গোলে উড়িয়ে প্রস্তুতি সেরেছে তারা। দলটির কোচ মার্ক ভন বোমেল তো শিষ্যদের বলেই দিয়েছেন, ‘সবাই হয়ত বলবে যদি তুমি বার্সায় যাও এবং ১-০, ২-০ অথবা ২-১ ব্যবধানে হার তবে সেটা ভালো রেজাল্ট। কিন্তু এটা আমাদের লক্ষ্য নয় এবং তুমি যদি এমনটা ভেবে থাকো তাহলে তার চেয়ে বরং ঘরে সবে থাকাই ভালো।’

তবে ফুটবল প্রেমিদের আজ বিশেষ নজর থাকবে লিভারপুলের আনফিল্ডে, যেখানে সালাহ-ফিরমিনোদের লড়তে হবে নেইমার-এমবাপের পিএসজির বিপক্ষে। এই প্রথম ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় মুখোমুখি হতে যাচ্ছে তারা। আসরের বর্তমান রানার আপ লিভারপুল হারানো ঐতিহ্য ফিরে পেতে ব্যাকুল। এজন্য নাপোলি থেকে গোলরক্ষক ট্রান্সফার ফির রেকর্ড গড়ে নিয়ে আসে আলিসনকে। কোচ ইয়ুর্গুন ক্লপের অধীনে ঘরের মাঠে তাদের রেকর্ডটাও দারুণ। উয়েফার প্রতিযোগিতায় শেষ ১৬ ম্যাচ ঘরের মাঠে তারা হারেনি। ২৮ বছর পর টানা ৫ জয়ে লিগ মৌসুম শুরু করেছে অল রেড খ্যাত দলটি।

ওদিকে ইংল্যান্ডে শেষ তিন ম্যাচ জিততে না পারলেও পিএসজিও মৌসুম শুরু করেছে দারুণভাবে। নতুন কোচ থমাচ টাচেলের অধীনে ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানে শতভাগ জয় ধরে রেখেছে তারা। ৫ ম্যাচে ১৭ গোলের পরিসংখ্যান দলটির আক্রমণভাগের পরিচয় মেলে ধরে। গত চ্যাম্পিয়ন্স লিগ আসরে তারা গ্রæপ পর্বে গোলের রেকর্ডও গড়ে। তবে নতুন কোচের অধীনে এবারের মৌসুমটা কিভাবে শুরু হয় সেটাই এখন দেখার। এজন্য দুজনকে আজ পাচ্ছেন না টাচেল। নিষেধাজ্ঞার কবলে রয়েছেন গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি বুফন ও মিডফিল্ডার মার্কো ভারাত্তি। ক্লপের দলে ফিরমিনোকে নিয়ে কিছুটা শংশয় রয়েছে। গত ম্যাচে চোখে আঘাত পান ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার। তবে অ্যাডাম ললনা ও দিয়ান লভরেনকে খেলা হচ্ছে না ইনজুরির কারণে। ‘সি’ গ্রæপের অপর ম্যাচেও আসরে প্রথমবারের মত মুখোমুখি হবে সার্বিয়ান চ্যাম্পিয়ন রেড স্টার বেলগ্রেড ও ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলি।

চ্যাম্পিয়ন লিগে আজ মুখোমুখি

বার্সেলোনা-পিএসভি আইন্দোভেন, রাত ১১টা

লিভারপুল-পিএসজি, রাত ১টা

ইন্টার মিলান-টটেনহাম, রাত ১১টা

মোনাকো-অ্যাটলেটিকো, রাত ১টা

রেড স্টার-নাপোলি, রাত ১টা

ক্লাব ব্রæগ-ডর্টমুন্ড, রাত ১টা

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here