দুই মাস কারাবাসের পর মুক্তি পেয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। দুর্নীতির দায়ে ১০ বছরের জন্য কারাদণ্ডের সাজা ভোগ করছিলেন তিনি।

তবে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট ওই মামলার রায় স্থগিত করে নওয়াজ শরীফ, তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ এবং জামাতা অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ সফদারের বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার রায় স্থগিত করলে ছাড়া পান নওয়াজ ও তার মেয়ে-জামাতা।

দেশটির প্রভাবশালী ইংরেজি দৈনিক দ্য ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নওয়াজ ও ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ সফদারের আপিলের ভিত্তিতে গত ৬ জুলাই জাতীয় জবাবদিহিতা আদালতে ঘোষিত দণ্ডের বিরুদ্ধে ইসলামাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি আতহার মিনাল্লাহ ও বিচারপতি মিয়াঙ্গুল হাসান আওরঙ্গজেব দণ্ড স্থগিতের এই নির্দেশ দেন।

বিবিসি জানিয়েছে, স্থানীয় সময় বুধবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় আদিয়ালা কারাগার থেকে যখন মেয়ে ও জামাতাকে নিয়ে বের হন নওয়াজ শরীফ, তখন তাকে সমর্থকরা গোলাপের পাপড়ি ছিটিয়ে স্বাগত জানান। পরে সেখান থেকে বিমানে লাহোরে চলে যান তারা।

গত সপ্তাহে লন্ডনে মারা যান নওয়াজ শরীফের ক্যান্সার আক্রান্ত স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ। তার মৃত্যুর এক সপ্তাহের মধ্যেই ছাড়া পেলেন বাবা-মেয়ে। তবে লাহোরে কুলসুমের শেষকৃত্যে অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল তাদের। শেষকৃত্যের আনুষ্ঠানিকতার পর আবারো কারাগারে ফিরে যেতে হয়েছিল তাদের।

পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এর নেতা নওয়াজ শরীফ ১৯৯০-১৯৯৩, ১৯৯৭-১৯৯৯ ও ২০১৩-২০১৭ সালে তিন মেয়াদে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

লন্ডনে বিলাসবহুল ফ্ল্যাট ক্রয় কেলেঙ্কারির দায়ে গত ৬ জুলাই নওয়াজ শরিফকে ১০ বছর ও মেয়ে মরিয়মকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয় পাকিস্তানের জবাবদিহিতা আদালত। এরপর নির্বাচনের প্রাক্কালে দেশে ফিরলে তাদের গ্রেফতার করে আদিয়ালা জেলে পাঠানো হয়। ওই মামলায় দণ্ড পেয়ে মরিয়মের স্বামী সফদারও একই কারাগারে রয়েছেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here