মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অপ্রত্যাশিতভাবে জয় পেয়েছেন বিরোধী দলের প্রার্থী এবং মালদ্বীভিয়ান ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ। স্থানীয় সময় সোমবার(২৪ সেপ্টেম্বর) মালদ্বীপের জাতীয় নির্বাচন কমিশন তাকে জয়ী ঘোষণা করে বলে জানায় দ্য মালদ্বীপ ইনডিপেন্ডেন্ট। মোহাম্মদ সোলিহ বর্তমান প্রেসিডেন্ট ইয়ামেনির চেয়ে ৩৮৪৮৪ ভোট বেশি পেয়েছেন। যা মোট ভোটের ৫৮ শতাংশ।

নির্বাচন কমিশন প্রধান আহমেদ শেরিফ বলেন, নির্বাচনে এমন কোন অনিয়ম ঘটেনি যা ফলাফলে প্রভাব ফেলতে পারে। দেশটির নিয়ম অনুসারে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার সাত দিনের মধ্যে ফলাফল ঘোষণা করতে হবে।

এরইমধ্যে মোহাম্মদ সোলিহ সুষ্ঠুভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। মাঝরাতে ক্যাম্পেইন অফিসের সামনে জড়ো হওয়া সমর্থকদের উদ্দেশ্যে সোলিহ বলেন, আমার বার্তাটি জোরালো ও স্পষ্ট। এখন আশার সময় ও ইতিহাসের অংশ হবার সময়।

মালদ্বীপে রোববারের (২৩ সেপ্টেম্বর) নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম ও কারচুপির আশঙ্কা করছিলো আন্তর্জাতিক মহল। নির্বাচনের মানদণ্ড বজায় রাখা হয়নি অভিযোগ করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নির্বাচন পর্যবেক্ষক দল পাঠানো থেকে বিরত থেকেছে। এছাড়া, মালদ্বীপ পরিস্থিতিতে নজর রাখছে ভারত ও চীন।

মোহাম্মদ সোলিহ মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে দেশটিতে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাব বাড়বে। প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের চীনপন্থী নীতি ও পরাশক্তি এই দেশটিকে বেপরোয়া বিনিয়োগের সুযোগ করে দেবার জন্য সমালোচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন ২০১৩ সালের এক বিতর্কিত নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় আসেন। অতঃপর তার পূর্বের প্রেসিডেন্ট ও মালদ্বীভিয়ান ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রতিষ্ঠাতা ও নেতা মোহাম্মদ নাশিদকে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে ২০১৫ সালে ১৩ বছরের সাজা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে তাকে, সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিলো রাজনৈতিক বিবেচনায় স্বেচ্ছানির্বাসনে যাবার। নির্বাসনে থাকা নাশিদ এবারের প্রেসিডেন্ট  নির্বাচনে তার দলের অপর নেতা মোহাম্মদ সোলিকে সমর্থন দিয়েছেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here