তনুশ্রী দত্তের অভিযোগে এ মূহুর্তে বেশ বিব্রতকর অবস্থায় আছেন নানা পাটেকর। এরই মধ্যে নতুন করে প্রকাশ পেয়েছে আরও চটকদার খবর। নানার সঙ্গে ঘটে যাওয়া কিছু পুরনো ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমে।

নব্বই দশকের কথা। তখন নীলাকান্তি পাটেকরের সঙ্গে বিবাহিত জীবন কাটাচ্ছিলেন নানা পাটেকর। ১৯৯৬ সালে ‘অগ্নিসাক্ষী’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় অভিনেত্রী মনীষা কৈরালার প্রেমে পড়েন নানা। সেসময় নানা পাটেকরের মতো কঠিন স্বভাবের একজন ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মনীষা কৈরালার প্রেমের খবর বলিউডের অনেককেই অবাক করে। যদিও তখন মনীষাও তার বদমেজাজী স্বভাবের জন্য বেশ বিতর্কিত ছিলেন। তবে অগ্নিসাক্ষীর শুটিংয়ের সময় নানা ও মনীষা দুজনেই একে অপরের প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছিলেন। সেসময় মনীষা কৈরালার প্রতিবেশীরা অনেকেই বলেছিলেন তারা নানাকে অনেক ভোরে মনীষার বাড়ি থেকে বের হতে দেখেছেন। এমনকি নানা নাকি সেসময় স্ত্রীর থেকে আলাদা থাকতে শুরু করেন। তবে মনীষার সঙ্গে সম্পর্কে থাকার কিছুদিনের মধ্যে তার উপর বিভিন্ন বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করা শুরু করেন নানা। সে সময় সহ অভিনেতাদের সঙ্গে মনীষাকে দেখলে বা খোলামেলা পোশাকে দেখলে নানা ভীষণ রেগে যেতেন। এজন্য বিভিন্ন সময় মনীষার সঙ্গে ঝগড়াও হয়েছে নানার।

এখানেই শেষ নয়। নানা ঠিক একই সময়ে অভিনেত্রী আয়েশা জুলকারের সঙ্গে গোপনে মেলামেশা শুরু করেন। এমনকি আয়েশার ঘর থেকে নানাকে হাতে নাতে ধরেছিলেন মনীষা। শোনা যায়, সেসময় আয়েশার সঙ্গে নাকি ঘনিষ্ঠ অবস্থায় ছিলেন নানা। যে ঘটনাটি মনীষার পক্ষে মানা সম্ভব ছিল না। তিনি ভেঙে পড়েন। ক্ষুব্ধ মনীষা সেসময় আয়েশাকে গালিগালাজও করেন। এই ঘটনার পর মনীষা নানাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। যদিও নানা সে প্রস্তাব সোজা খারিজ করে দেন। আর এরপরেই নাকি মনীষার সঙ্গে সম্পর্ক ভেঙে যায় নানা পাটেকরের।

এদিকে মনীষার সঙ্গে সম্পর্ক ভাঙার পর পরই নানা পাটেকর আয়েশার সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করে নেন এবং আয়েশার সঙ্গে লিভ-ইন করা শুরু করেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here