সৌদি রাজা সালমান বিন আব্দুল আজিজ তার সরকার বিরোধী সাংবাদিক জামাল খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে রোববার রাতে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন। প্রেসিডেন্ট এরদোগানের দপ্তরের একটি সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

টেলিফোনালাপে খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে তদন্ত করার জন্য দু’দেশের যৌথ ওয়ার্কিং কমিটি গঠনে সম্মত হওয়ায় তুরস্ককে ধন্যবাদ জানান সৌদি রাজা সালমান।  তিনি তুরস্কেকে ‘ভ্রাতৃপ্রতীম দেশ’ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, আঙ্কারার সঙ্গে সকল ক্ষেত্রে সম্পর্ক ও সহযোগিতা শক্তিশালী করতে চায় রিয়াদ।

এ সময় তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানও সৌদি আরবের সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর থেকে জামাল খাশোগি নিখোঁজ রয়েছেন। ওই ঘটনার পর এই প্রথম তুরস্ক ও সৌদি আরবের শীর্ষ নেতারা টেলিফোনে কথা বললেন।

মধ্যপ্রাচ্যের গণমাধ্যমগুলো বলেছে, খাশোগির নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ব্যাপারে সৌদি আরবের ওপর যে প্রচণ্ড আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি হয়েছে তা কমানোর জন্যই রাজা সালমান রোববার রাতে প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে ফোন করেন।

তুরস্কের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো তাদের কাছে থাকা তথ্যপ্রমাণের ওপর ভিত্তি করে বলেছে, সৌদি কনস্যুলেটে ঢোকার পর খাশোগিকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয় এবং পরে তার লাশ টুকরা টুকরা করে গোপনে ওই কূটনৈতিক মিশন থেকে বাইরে নেয়া হয়।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলেছে, জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ড প্রমাণ করছে, সৌদি রাজতন্ত্রের সমালোচনাকারীরা দেশের বাইরেও নিরাপদ নন। আন্তর্জাতিক সমাজ খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে রিয়াদকে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করার আহ্বান জানিয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here