সৌদি রাজার বিশ্বাসযোগ্যতা পুনরুদ্ধার করতে দেশটির যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন সালমানের জায়গায় অন্য কাউকে বসানো উচিত। সৌদি আরবে নিযুক্ত ব্রিটেনের সাবেক সামরিক অ্যাটাশে কর্নেল ব্রায়ান লিস এক সাক্ষাৎকারে একথা বলেছেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে সৌদি রাজা সালমান বিন আবদুল আজিজকে উদ্যোগ নিতে হবে। তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরের সৌদি কন্স্যুলেট ভবনে সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে বর্বরভাবে হত্যা করার পর যখন সৌদি সরকার সারা বিশ্বে চরম সমালোচনার মুখে তখন ব্রিটিশ কর্নেল রিয়াদ সরকারকে এ পরামর্শ দিলেন। খাশোগি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় যুবরাজ বিন সালমান জড়িত রয়েছেন বলে খবর বেরিয়েছে। তিনিই খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন বলে গণমাধ্যমে খবর বের হয়েছে।

এ সম্পর্কে কর্নেল লিস বলেন, সৌদি আরবের কার্যত শাসক যুবরাজ বিন সালমানকে সরিয়ে দেয়ার দিন ঘনিয়ে এসেছে। তিনি ক্ষমতার শেষ দিনগুলো পার করছেন। সম্ভবত ৮২ বছর বয়সী রাজা তার ছেলেকে এ পদ থেকে সরিয়ে দিতে পারেন। সৌদি শাসকরা হয়ত কখনো যুবরাজের দোষ স্বীকার করবেন না কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, তিনি পরিচ্ছন্ন। বিন সালমানকে সরিয়ে দিয়ে রাজা এই দোষ থেকে মুক্তি পাওয়ার চেষ্টা করবেন। বিদেশি চাপের মুখে তিনি এই পরিবর্তন আনতে পারেন তবে তিনি খুব দ্রুত এ কাজ করবেন তা নয়। এজন্য হয়ত কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। যদি এটা করেন তাহলে সৌদি রাজা হয়ত কিছুটা বিশ্বাসযাগ্যতা ফিরে পাবেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here