প্রথম দুই ম্যাচের হারে বিদায় নিশ্চিত হওয়ায় শেষ ম্যাচটা ছিল আনুষ্ঠানিকতার। জয় দিয়েই সেই আনুষ্ঠানিকতা রাঙিয়ে ফিরছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী ফুটবল দল।

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে স্বাগতিক তাজিকিস্তানের মেয়েদের ৫-১ গোলে উড়িয়ে নিজেদের মিশন শেষ করেছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা।

ম্যাচের শুরু ছয় মিনিটে জাল কাঁপানো শুরু। তারপর প্রথমার্ধ্বে আরও দুটি গোল এসেছে ২৫ ও ৪১ মিনিটে। তার দুই মিনিট পরে আয়োজকরা যদিও একটি গোল করে ব্যবধান কমান। ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পরের অর্ধ্বে আরও দুটি গোল করে গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা।

৬০ ও ৭৪ মিনিটে বল জালে জড়িয়ে ম্যাচ একপেশে করে ফেলেন স্বপ্না-মৌসুমীরা। আর ফিরতে পারে নি তাজিকিস্তানও। ৫-১ ব্যবধানে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছেড়েছে বাঘিনীরা।

তেতে থাকা বাংলাদেশ পুরো ম্যাচে ৫৬ বার আক্রমণে গিয়েছে। তাজিকিস্তানের গোলবারে শট নিয়েছে সাতটি। ম্যাচের আধিপত্য ছিল দেখার মতো। ৬০ শতাংশ। যদিও এ জয় এএফসির ফুটবলের মূলপর্বে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট নয়।

প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী কোরিয়ার কাছে ৭-০ ব্যবধানে হেরেছে গোলাম রাব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। মূলপর্বে পা রাখতে পরের ম্যাচে জয়ের বিকল্প ছিল না। ঘুরে দাঁড়াবার ম্যাচে ২-০ ব্যবধানে হেরে টুর্নামেন্টে টিকে থাকার লড়াইয়ে থামতে হয়েছে মেয়েদের।

মিশনটা আগের ম্যাচেই কার্যত শেষ হয়ে গেছে সাফ চ্যাম্পিয়নদের। কারণ প্রত্যেক গ্রুপ থেকে সেরা দল সরাসরি চলে যাবে বাছাইপর্ব থেকে মূলপর্বে। আর ছয় গ্রুপ থেকে সেরা দুই রানার্স আপ দল পাবে থাইল্যান্ডে মূল পর্বে খেলার টিকিক। টানা দুই ম্যাচ হেরে সেই স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে বাংলাদেশের। তারপরেও সান্ত্বনার জয়টি অভিজ্ঞতার থুলিতে নতুন কিছুই যোগান দিবে আশ্বাস সংশ্লিষ্টদের।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here