মুশফিকুর রহীম, মুমিনুল হক ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দুর্দান্ত ব্যাটিং। বল হাতে জ্বলে উঠলেন মেহেদি হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইমলাম। তাদের নৈপুণ্যে ঢাকা টেস্টে দাঁড়তেই পারল না জিম্বাবুয়ে। পঞ্চম দিনের চা বিরতির আগেই বাংলাদেশ পেয়ে গেল ২১৮ রানের দাপুটে জয়। এর ফলে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ স্বাগতিকরা শেষ করল সমতায়।

৪৪৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়ে বৃহস্পতিবার চা বিরতির আগেই গুটিয়ে গেছে ২২৪ রানে। বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৮ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন মেহেদি হাসান মিরাজ। তাইজুল ২টি ও মোস্তাফিজ নিয়েছেন ১টি উইকেট। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও সেঞ্চুরি করেছেন ব্রেন্ডন টেইলর। তবে তিনি পারেননি জিম্বাবুয়ের ম্যাচ বাঁচাতে।

প্রথম সেশনে দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান শন উইলিয়ামস ও সিকান্দার রাজাকে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান ও তাইজুল ইসলাম। তারপরই টেলরের সঙ্গে মুরের প্রতিরোধে লাঞ্চের বিরতিতে যায় জিম্বাবুয়ে।

দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে তাদের ৬৬ রানের জুটি ভাঙেন মিরাজ। মুরকে ১৩ রানে ইমরুল কায়েসের ক্যাচ বানান তিনি। কিছুক্ষণ পর রেজিস চাকাভা মাত্র ২ রান করে রান আউট হন। মুমিনুল হকের থ্রো থেকে সহজেই তাকে রান আউট করেন মুশফিকুর রহিম।

জিম্বাবুয়ে ব্যাটসম্যানদের যাওয়া আসার মিছিলে এরপর যোগ দেন ডোনাল্ড তিরিপানো। মিরাজের বলে রানের খাতা না খুলেই লিটন দাসকে ক্যাচ দেন তিনি। আবারও এই বাংলাদেশি স্পিনারের ভেল্কিতে ব্রেন্ডন মাভুতা ধরা পড়েন তাইজুলের হাতে।

মিরাজ তার পঞ্চম উইকেট তুলে নেন টেলরকে ১১০ রানে আউট করে।

৪ রানে টেলর ও ২ রানে উইলিয়ামস বৃহস্পতিবার ক্রিজে খেলতে নামেন। ২ উইকেটে ৭৬ রানে তাদের দিন শুরু হয়েছে।

আগের দিন হ্যামিলটন মাসাকাদজা ও ব্রায়ান চারির উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৬৮ রানে প্রথম উইকেট হারানো জিম্বাবুয়ে আর ২ রান যোগ করতে তাদের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যানকে ফেরান তাইজুল ইসলাম। চারি ৪৩ রানে তার শিকার হন। আর মাসাকাদজা করেন ২৫ রান।

প্রথম ইনিংস বাংলাদেশ ঘোষণা করে ৭ উইকেটে ৫২২ রানে। তারপর ৩০৪ রানে জিম্বাবুয়েকে অলআউট করে স্বাগতিকরা দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে ৬ উইকেটে ২২৪ রানে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here