দুপুরে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে নেমে সাকিব আল হাসান আর হোটেলে যাননি। সোজা চলে যান জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। পোশাক পাল্টেই নেমে যান ব্যাট নিয়ে। টানা ৪৫ মিনিট নেটে সামলেছেন পেস, স্পিন সব ধরণের বল। অনুশীলনে সবালীল অধিনায়ককে পেয়ে কোচ স্টিভ রোডসকেও দেখা গেল বেশ ফুরফুরে।

আঙুলের চোটে ব্যাটিংয়েই সাকিবের সমস্যা হচ্ছিল বেশি। আঙুল বাঁকালেই ব্যথা পেতেন। এশিয়া কাপে সেই চোটের সঙ্গে যোগ হয় সংক্রমণ। ছিটকে পড়া সাকিব কবে আবার খেলায় ফিরবেন তা নিয়েই ছিল অনিশ্চয়তা। এশিয়া কাপের পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজটাই মিস হয়েছে সাকিবের। এরমধ্যে সেরে উঠেছেন পুরোটাই। নামছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের শুরু থেকেই।

কদিন আগে রোডস বলেছিলেন তার দেখা সেরা টেকটিক্যাল অধিনায়ক সাকিব। টেস্টে দলের পারফরম্যান্স উঠানামার মধ্যে থাকায় এই সময়ে সাকিবের অভাব বেশ টের পাচ্ছে বাংলাদেশ। রোববার চট্টগ্রাম নেমে  দলবল নিয়ে অনুশীলনে গিয়ে সাকিবের ফেরা নিয়েই কোচের কণ্ঠে তৃপ্তি, ‘তার ফিরে আসা দারুণ ব্যাপার। সাকিব হলো মাস্টার টেকটিশিয়ান।’

নতুন করে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর ঘরের মাঠে আর টস করতে নামা হয়নি সাকিবের। শ্রীলঙ্কা সিরিজে ছিলেন মাঠের বাইরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজে দুই টেস্টে নেতাগিরি করতে পেরেছিলেন বটে জিম্বাবুয়ে সিরিজে আবার মাঠের বাইরে থাকা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফিরতে সিরিজে তাই পাওয়া যাচ্ছে নিয়মিত অধিনায়ককে।

ঘরের মাঠে এই সময়ে হওয়া চার টেস্টে দলের পারফরম্যান্স খুবই হতাশার। শ্রীলঙ্কার কাছে হার, জিম্বাবুয়ের কাছে হার আছে। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নেতৃত্বে জয় এসেছে কেবল সর্বশেষ মিরপুর টেস্টে। ব্যাটিং, বোলিং দিয়ে খেলোয়াড় সাকিব তো বটেই। অধিনায়ক সাকিবের অনুপস্থিতিও যে কত প্রকট কিছুটা রাখঢাক করেও বুঝিয়ে দিয়েছেন কোচ, ‘রিয়াদ ভাল করেছে মিরপুর টেস্টে, কিন্তু সাকিবের মতো বুদ্ধিমত্তা, টেকটিক্যাল বোঝাপড়া খুব গুরুত্বপূর্ণ সাফল্য পাওয়ার জন্য। আমরা তাকে স্বাগত জানাই। তার আঙুল এখন ভালো আছে। আজ ৪৫ মিনিট ব্যাটিং করেছে। কাজেই সব ভালোর দিকে যাচ্ছে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here