যতই দিন যাচ্ছে ততই যেন গ্ল্যামারাস হয়ে উঠছেন ব্যোমকেশ নায়িকা র‌্যাচেল হোয়াইট। তার ইনস্টাগ্রামে উঁকি-ঝুঁকি মারলেই দেখা মেলে গ্ল্যামারের বর্ণছটা। সাধারণ পোশাকে হোক বা প্রোফেশনাল ফোটোশ্যুট, উভয় ক্ষেত্রেই আবেদনময়ী লুকে ঘায়েল করেন ভক্তদের। বাংলা ইন্ডাস্ট্রির সুন্দরী নায়িকাদের মধ্যে তিনি নিঃসন্দেহে অন্যতম।

কেবল সৌন্দর্য্য নয়, বিউটি উইথ ব্রেনসেরও উদাহরণস্বরূপ হিসেবে নেওয়া যায় তার নাম। সোশ্যাল মিডিয়ায় রেচেল হোয়াইটের বিকিনি পরা ছবিগুলো দেখলে যেমনি পুরুষরা উষ্ণতায় ভাসেন তেমনি যেকোনো মেয়েই হেল্থ কনশিয়স হয়ে উঠবেন।

অবশ্য, নিজের টোনড বডি মেনটেন করার জন্য কম কাঠখড় পোড়াতে হয়নি তাকে। সময়মত ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে জিমে গিয়ে এক্সারসাইজ, সবই নিয়ম মেনে করেন রেচেল৷ খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারেও একদম প্রপার ডায়েট মেনটেন করেন বলে মেকআপ ছাড়াও তাকে একই রকম সুন্দর লাগে।

প্রসঙ্গত, #MeToo-র জেরে সংবাদ শিরোনামে বারবার উঠে এসেছে র‌্যাচেলের নাম। হোয়াইটের অভিযোগ, সাজিদ তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার, অশ্লীল আচরণ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘হমশকলস’ ছবির জন্য সাজিদ ফোন করেছিলেন। তিনি আমাকে বাড়িতে ডেকে পাঠান। আমি বাড়িতে যেতে রাজি না হলে সাজিদ বলেছিলেন, চিন্তা করার কিছু নেই, কারণ সাজিদ তার মায়ের সঙ্গে থাকেন, তার মা উপস্থিত থাকবেন সেখানে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সাজিদের বাড়িতে যাওয়ার পর তার পরিচারিকা আমাকে সাজিদের বেডরুমে পাঠিয়ে দেয়। সাজিদ তখন আমাকে অশ্লীল কথা বলতে শুরু করেন। আর এসব বলতে বলতেই সাজিদ হঠাৎই বলেন, কাপড় খুলে ফেলো৷ আমি তার কথা মানতে চাইনি। শুধু তাই নয়, পরিচালক আমাকে পাঁচ মিনিটের মধ্যে সিডিউসও করতে বলেন। এই সব দেখে আমি কোনো মতে সেখান থেকে বেরিয়ে আসি।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here