আজ ১২ রবিউল আউয়াল। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী। প্রায় এক হাজার ৪০০ বছর আগে এই দিনে আরবের মরু প্রান্তরে মা আমিনার কোল আলো করে পৃথিবীতে আসেন, বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। আবার এই দিনেই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান তিনি।

বুধবার দিবসটি উপলক্ষে আলাদা বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ ছাড়া দিবসটি উপলক্ষে রাজধানীর শাজাহানপুর রেলওয়ে কলোনি মাঠে বিশেষ অনুষ্ঠান ও জশনে জুলুছের আয়োজন করে আশেকানে মাইজভান্ডারী অ্যাসোসিয়েশন।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে কথা বলেন মাইজভান্ডারি দরবার শরিফের পীর সৈয়দ মুজিবুল বশর আল হাসানী আল মাইজভান্ডারী। এ সময় তিনি ১২ রবিউল আউয়ালের তাৎপর্য তুলে ধরেন এবং সবাইকে নবীর তরিকা অনুযায়ী চলার আহ্বান জানান।

সৈয়দ মুজিবুল বশর বলেন, ‘মানুষকে আলোর পথ দেখানোর জন্য, আল্লাহর সঙ্গে সম্পর্ক করিয়ে দেওয়ার জন্য, নবী মুহাম্মদ (সা.)কে এই বিশ্বের জমিনে পাঠিয়েছিলেন। আমরা আল্লাহকে পেলাম, আল্লাহর কোরআনকে পেলাম, সুন্নাহ পেলাম এবং আমরা যে ইনসান আমরা যে মানুষ, সেটার পরিচয় আমরা পেলাম এবং কোরআন সুন্নাহভিত্তিক একটা জীবনের মধ্য দিয়ে আল্লাহকে পাওয়ার পথ আমরা পেয়ে গেলাম।’

পরে মিলাদ মাহফিল ও দোয়া শেষে বিশাল একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। এতে অংশ নেওয়া মাইজভাণ্ডারি দরবার শরিফের অনুসারিরা আল্লাহ রাসুলকে সব সময় মনে রেখে ঈমান আমলের মধ্যে দিনযাপন করার তাগিদ দেন।

আনন্দ মিছিলে অংশ নেওয়া এক মুসুল্লি বলেন, ‘রহমতের আশায়, নেয়ামতের আশায় আমরা আল্লাহকে রাজি করানোর জন্য, খুশি করানোর জন্য আমরা মিলাদুন্নবী পালন করছি। প্রতি মুহূর্তে উনাকে স্মরণ রাখতে হবে। আল্লাহর রাসুলকে স্মরণ রাখতে হবে।’

আরেক ব্যক্তি বলেন, ‘যেই শান্তির বাণী নবী আমাদের মাঝে দিছেন, সেই বাণী নিয়ে আমরা আজকে আনন্দ মিছিল করতেছি।’

আনন্দ শোভাযাত্রাটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রেলওয়ে ময়দানে গিয়ে শেষ হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here