ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) আইনগত ও বিধিগত ভিত্তি রয়েছে উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা জানান যে তারা আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার থেকে পিছিয়ে যাবেন না। তার মতে, এটি অর্থ ও সময় বাঁচাবে।

আজ রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “আগামীকালের বৈঠকেই বিষয়টি চূড়ান্ত করা হবে।”

সিইসি বলেন, “একটি নির্বাচনী এলাকার সবগুলো ভোট কেন্দ্রে, না কিছু কিছু কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে, তা কাল নির্ধারণ করব। পরীক্ষামূলকভাবেই এটি ব্যবহার করা হবে।”

“ইভিএম ব্যবহারে কোনো আইনগত বাধা নেই। আমরা সীমিত আকারে এটি ব্যবহার করব। কোথায়, কতটুকু ব্যবহার করা হবে সে সিদ্ধান্ত দু-একদিনের মধ্যে জানিয়ে দেব,” যোগ করেন নূরুল হুদা।

ইভিএম নির্বাচনকে স্বচ্ছ ও সহজ করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “যারা এর বিরোধিতা করছেন, তাদের প্রতি আহ্বান জানাই, প্রয়োজন হলে আপনাদের টেকনিক্যাল টিম পাঠাতে পারেন। আমরা তাদের দেখিয়ে কনভিন্স করতে পারব।”

ইভিএমকে ভোট জালিয়াতির একটি উপকরণ হিসেবে উল্লেখ করে এর ব্যবহার বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে অন্যতম বিরোধীজোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হলে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে গতকাল মামলা করার হুমকি দিয়েছে এই জোট।

এদিকে, বুড়িগঙ্গা নদী থেকে বিএনপির একজন মনোনয়ন প্রত্যাশীর লাশ উদ্ধার সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, “হত্যাকারীদের খুঁজে বের করতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হবে।”

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here