দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নাস্তানাবুদ করলো বাংলাদেশ। স্বাগতিকদের দেয়া ২০৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ক্যারিবীয়দের ইনিংস ১৩৯ রানে গুটিয়ে গেছে। ফলে ৬৪ রানের বড় জয় পেল বাংলাদেশ। আর এ জয় সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল সাকিববাহিনী।  বল হাতে একাই ৬ উইকেট নিয়েছেন স্পিন জাদুকর তাইজুল ইসলাম। সাকিব ও মিরা দুইটি কর উইকেট নিয়েছেন।

সফরকারীদের হয়ে সর্বোচ্চ ৬২ বলে৪৩ রান করেছেন সুনীল অ্যামব্রিস।  শেষ দিকে জোমেল ওয়ারিকান ৫৫ বলে ৪১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেও দলকে জেতাতে ব্যর্থ হন।

এর আগে দ্বিতীয় দিনের ৫ উইকেটে ৫৫ রান নিয়ে তৃতীয় দিন খেলতে নামে বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিম ১১ ও মেহেদী হাসান মিরাজ শূন্য রান নিয়ে খেলা শুরু করেন। তবে শুরুটা ভালো এনে দিতে পারেননি তারা। স্কোর বোর্ডে ১৪ রান যোগ হতেই গ্যাব্রিয়েল শ্যাননের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন মুশফিক (১৯)।

দিনের শুরুতেই মিস্টার ডিপেন্ডেবল ফিরলেও লড়াই চালিয়ে যান মেহেদী হাসান মিরাজ। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন তিনি। তাতে এগিয়ে যেতে থাকে বাংলাদেশ। কিন্তু হঠাৎই খেই হারান মিরাজ। দেবেন্দ্র বিশুর বলে শান ডাওরিচকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এ অলরাউন্ডার। ফেরার আগে লড়াকু ১৮ রান করেন তিনি।

পরে নাঈম হাসানকে নিয়ে লড়াইয়ের চেষ্টা করেন মাহমুদউল্লাহ। তবে তাকে যথার্থ সঙ্গ দিতে ব্যর্থ হন নাঈম। বিশুর বলে শাই হোপকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। সঙ্গী হারিয়ে টিকতে পারেননি মাহমুদউল্লাহও। একই বোলারের শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ১ চার ও ১ ছক্কায় দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩১ রান করেন মিস্টার কুল।

টাইগার শিবিরে শেষ পেরেকটি ঠুকেন জোমেল ওয়ারিক্যান। তাইজুল ইসলামকে রোস্টন চেজের তালুবন্দি করে ফেরান তিনি। এতে ১২৫ রানে থামে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস। আগের ইনিংসের ৭৮ মিলে মোট লিড দাঁড়ায় ২০৩।

ক্যারিবীয়দের হয়ে বিশু নেন সর্বোচ্চ ৪ উইকেট। ৩ উইকেট নেন চেজ। ২টি ঝুলিতে ভরেন ওয়ারিক্যান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here