দেশের শীর্ষ টিভি অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’র এবারের পর্ব ধারণ করা হয়েছে প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্যের অপূর্ব লীলাভূমি সুনামগঞ্জ জেলার দুর্গম অঞ্চল সীমান্তঘেঁষা তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাটে। এবারের পর্বে রয়েছে সুনামগঞ্জের ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত-দর্শনীয় ও পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় স্থানগুলোর উপর তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন।

বাংলাদেশের সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের এক অপরিহার্য নাম সুনামগঞ্জ। দেওয়ান হাছন রাজা, রাধারমণ দত্ত, দুর্বিন শাহ এবং শাহ আবদুল করিমসহ আরো বহু লোক সাধকদের অমর সংগীতে মুখরিত এই সুনামগঞ্জ। তাদের উপর রয়েছে একটি তথ্যভিত্তিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন।

ঢাকার আশুলিয়ার মাইনুল মাজেদিনের ঘড়ি সংগ্রহের ওপর রয়েছে একটি তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন। জার্মানি প্রবাসী শৌখিন দূরপাল্লার দৌড়বিদ বাংলাদেশের নবাবগঞ্জের শিব শংকর পালের ওপর রয়েছে আর একটি অনুপ্রেরণামূলক প্রতিবেদন। যিনি শুধুমাত্র ইত্যাদিতে অংশগ্রহণের জন্য সরাসরি নিউ ইয়র্ক থেকে টেকেরঘাটে এসেছেন।

২০১০ সালের অক্টোবর মাসে প্রচারিত ইত্যাদিতে দু’জন তরুণকে দেখানো হয়েছিল, যারা হতদরিদ্র, অসহায় শিশুদের চিকিৎসা খরচের জন্য বিভিন্ন দোকান বা মলের সামনে দাঁড়িয়ে স্বচ্ছ কাচের বাক্সে অর্থ সংগ্রহ করতো।

এবারের পর্বে জানা যাবে এই তরুণেরা এতদিন কি করেছে এবং এখন কি করছে? বিদেশি প্রতিবেদনে রয়েছে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি দক্ষিণ আফ্রিকার ওপর একটি তথ্যবহুল প্রতিবেদন। এবারের ইত্যাদিতে মূল গান রয়েছে একটি। সুনামগঞ্জের মরমী সাধক দেওয়ান হাছন রাজা, রাধারমণ দত্ত, দুর্বিন শাহ ও শাহ্‌ আবদুল করিমের লেখা চারটি গানের অংশ

বিশেষের সমন্বয়ে এ গানটি গেয়েছেন এই সিলেটেরই সন্তান শিল্পী শুভ্রদেব, সেলিম চৌধুরী ও সহশিল্পীবৃন্দ।

এছাড়াও সুনামগঞ্জকে নিয়ে মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের কথায়, হানিফ সংকেতের সুরে এবং মেহেদীর সংগীতায়োজনে একটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছেন টেকেরঘাটেরই স্থানীয় নৃত্যশিল্পীবৃন্দ। নাচটির কোরিওগ্রাফি করেছেন মনিরুল ইসলাম মুকুল, কণ্ঠ দিয়েছেন প্রতীক হাসান ও আনিকা। দর্শক পর্বের নিয়ম অনুযায়ী ধারণস্থান সুনামগঞ্জকে ঘিরে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে হাজার হাজার দর্শকের মাঝখান থেকে ৩ জন দর্শক নির্বাচন করা হয়। ২য় পর্বে নির্বাচিত দর্শকরা আঞ্চলিক ভাষায় একটি নাট্যাংশে অভিনয় করেন। যা ছিল বেশ উপভোগ্য। নিয়মিত পর্বসহ এবারও রয়েছে বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে বেশ কিছু সরস অথচ তীক্ষ্ন নাট্যাংশ। চাপমুক্ত থাকার উপায়, নির্বাচনার্থী প্রার্থীর আসল রূপ, কথা নিয়ে কথা, দান প্রতিদান, পারিবারিক কলহে অন্যের প্রভাব, এগিয়ে থাকার অসুবিধাসহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর রয়েছে বেশ কয়েকটি নাট্যাংশ। বরাবরের মতো এবারও ইত্যাদির শিল্প নির্দেশনা ও মঞ্চ পরিকল্পনায় ছিলেন ইত্যাদির নিয়মিত শিল্প নির্দেশক মুকিমুল আনোয়ার মুকিম।

এবারের ইত্যাদিতে পরিচালকের সহকারী হিসেবে ছিলেন যথারীতি রানা ও মামুন। গণমানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদির আগামী পর্ব একযোগে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে প্রচার হবে ৩০শে  নভেম্বর রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর।

অনুষ্ঠানটি পুনঃপ্রচার করা হবে আগামী ২রা  ডিসেম্বর রাত ১০টার ইংরেজি সংবাদের পর। ইত্যাদি রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন। আর স্পন্সর করেছে যথারীতি কেয়া কস্‌মেটিকস্‌ লিমিটেড।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here