ব্রেক্সিট ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের কারণে বিয়ে ভেঙে গেছে অভিনেতা মাইকেল শীন ও সারাহ সিলভারম্যানের। মাইকেল শীন বৃটেনের ওয়েলসের ৪৯ বছর বয়সী অভিনেতা। অন্যদিকে সারাহ সিলভারম্যান যুক্তরাষ্ট্রের ৪৭ বছর বয়সী কমেডিয়ান। চার বছর তারা একত্রে সংসার করেছেন। কিন্তু ব্রেক্সিট ও ডনাল্ড ট্রাম্পের কারণে সেই বন্ধন ভেঙে গেছে ২০১৭ সালে।

কিভাবে তাদের এই বিচ্ছেদ ঘটলো? মাইকেল শিন ফিরে আসেন বৃটেনে। তিনি জানার চেষ্টা করেন বৃটিশরা কেন ব্রেক্সিটের পক্ষে ভোট দিয়েছেন। অন্যদিকে সারাহ সিলভারম্যান যুক্তরাষ্ট্রে একটি ট্যুর দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্বাচন নিয়ে এবং লোকজনের সাক্ষাতকার নিয়ে জানার চেষ্টা করেন কেন ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন।

আর তাই এই দুটি ঘটনা তাদের সম্পর্ককে পরোক্ষভাবে ভেঙে দিয়েছে। মাইকেল শীন বলেন, তিনি এবং সারাহ ব্রেক্সিট ও ট্রাম্পের নির্বাচনের পরে রাজনৈতিক আবহে জড়িত হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এবং তা ভিন্নভাবে। এ ঘটনা থেকেই সারা ‘আই লাভ ইউ আমেরিকা’ শোয়ের সঙ্গে যুক্ত হন। এতে তিনি রাজনৈতিক অঙ্গনের লোকজনের সাক্ষাতকার নিতে থাকেন। মাইকেল শীন বলেন, ব্রেক্সিট নিয়ে মানুষ কেন ভোট দিল তা জানার জন্য এতে আমি উদ্বুদ্ধ হই। মাইকেল শীণ মনে করেন বৃটেনে ফেরা তার জন্য খুব কঠিন হবে। কারণ তিনি সিনেমার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছেন। তবে তিনি মনে করেন, তাদের মধ্যে এই বিচ্ছেদ এ জন্য দু’জনের জন্যই যথার্থ কাজ হবে। একবার সারাহ বলেছেন, মাইকেল শীনের সঙ্গে ছিলাম আমি। আমাদের বিচ্ছেদ ঘটেছে বড়দিনে। আপনারা হয়তো জানবেন, সে বৃটেন ফিরে গেছে। সেখানে সত্যিকার অর্থে তার জীবন কাটিয়ে নিচ্ছে। আমি সেখানে নেই।

উল্লেখ্য, এর আগে ‘আন্ডারওয়ার্ল্ড’ ছবির অভিনেত্রী কেটি বেকিনসালে (৪৫)-এর সঙ্গে ডেটিং করেছেন মাইকেল শীন। বেকিনসালের সঙ্গে তার রয়েছে এক বছর বয়সী একটি কন্যা লিলি মো। বেকিনসালের সঙ্গে ১৯৯০এর দশকের মধ্যভাগে যোগাযোগ হয়। ওই সময় তারা একত্রিত ছিলেন। কিন্তু ২০০৩ সালে সেই সম্পর্ক ভেঙে যায়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here