আগেই ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের নকআউট পর্ব নিশ্চিত করা বার্সেলোনাকে এগিয়ে নেন লিওনেল মেসি। আর্জেন্টিনার এই ফরোয়ার্ডের ফ্রি কিকে পা ছুঁইয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জেরার্দ পিকে। ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিল পিএসভি আইন্দহোভেন। তবে শেষ পর্যন্ত দারুণ জয়ে গ্রুপ সেরা হয় ২০১৫ সালের চ্যাম্পিয়নরা।

পিএসভির মাঠে বুধবার ২-১ গোলে জেতে বার্সেলোনা। পাঁচ ম্যাচে চার জয় ও এক ড্রয়ে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেরা ষোলোয় উঠেছে কোচ আরনেস্তো ভালভার্দের দল।

গত সেপ্টেম্বওে ন্যু কাম্পে প্রথম লেগের ম্যাচে মেসির হ্যাটট্রিকে ৪-০ গোলে জিতেছিল কাতালান ক্লাবটি। ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনের গোলে ইন্টার মিলানকে ১-০ ব্যবধানে হারানো টটেনহ্যাম হটস্পার ৭ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

সমান পয়েন্ট নিয়ে মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে ইন্টার মিলান। ১ পয়েন্ট নিয়ে তলানিতে আইন্দহোভেন।

বুধবার ম্যাচের চতুর্থ মিনিটেই বার্সেলোনা পেছনে পড়তে পারতো। কিন্তু গাস্তন পেরেইরোর প্রচেষ্টা আটকে কাতালানদের রক্ষা করেন গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেন। ষোড়শ মিনিটে ইভান রাকিতিচের ভুলে বল পেয়ে যাওয়া উরুগুয়ের এই মিডফিল্ডারের শট পোস্টে লেগে ফিরলে আরেকবার বেঁচে যায় বার্সেলোনা। তবে ৩৫তম মিনিটে দারুন আক্রমণে প্রায় জালের দেখা পেয়েই গিয়েছিল আরনাস্তে ভালভার্দের শিষ্যরা।

কিন্তু মেসির বাড়নো বলে কৌতিনহো ঠিকমত পোষ্টে শট নিতে পারেননি। দুই মিনিট পর আর্তুরো ভিদালের ব্যর্থতায় কাতালুনিয়ার দলটির হতাশা আরও বাড়ে। এদিকে ৪৫তম মিনিটে ভাগ্যের ফেরে আবারও গোলবঞ্চিত হয় আইন্দহোভেন। এবার সতীর্থের ফ্রি কিকে ডি ইয়ংয়ের হেড ক্রস বারে লেগে ফেরে।

বিরতির পর গোলের নেশায় মেতে ওঠে বার্সেলোনা। অবশ্য এর সুফল পেতে খুব বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি দলটিকে। ৬১তম মিনিটে মেসির নৈপুণ্যে এগিয়ে যায় ভালভার্দের দল।

উসমান ডেম্বেলের সঙ্গে একবার বল দেওয়া-নেওয়া করে বাঁ পায়ের দারুণ শটে কাছের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন কিং লিও। এর ৯ মিনিট পর পিকের গোলে ব্যবধান দ্বিগুন করে কাতালানরা। মেসির ফ্রি কিকে স্পেনের এই ডিফেন্ডার পা ছোঁয়ালে বল গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে জালে জড়ায়। তারপরও জয় নিশ্চিত ছিল না বার্সেলোনার। কেননা ঘরের মাঠে বুধবার ম্যাচের ৮২তম মিনিটে সতীর্থের বাড়ানো ক্রসে নেদারল্যান্ডসের ফরোয়ার্ড ডি ইয়ং হেডে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করলে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় আইন্দহোভেন। শেষ পর্যন্ত অবশ্য তেমনটা হতে দেননি মেসি-পিকেরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here