রাশিয়া বিশ্বকাপে মেখেছিলেন সেরা খেলোয়াড়ের তকমা। এরপর উয়েফা ও ফিফার বর্ষসেরা হয়েছেন। সে হিসেবে এবার ব্যালন ডি’অর পুরস্কার জেতার দৌড়ে সবার আগে রয়েছেন লুকা মদ্রিচ। ব্যাপারটি এরইমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম প্রকাশ করেছে। কিন্তু তার আগে নাকি ক্রোয়েশিয়ার মিডফিল্ডার ভাল করেই জানেন ২০১৮ সালের ব্যালন ডি’অর তিনিই পাচ্ছেন। এজন্য তৈরিও তিনি।

রিয়াল মাদ্রিদকে গত পাঁচ বছরে চারবার চ্যাম্পিয়নস লিগ চ্যাম্পেয়নে অবদান রেখেছেন লুকা মদ্রিচ। এদিকে গত গ্রীস্মে তার নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনারে জায়গা করে নিয়েছিল ক্রোয়েশিয়া।

ধরাবাহিকভাবে গত মৌসুমে ক্লাব ও জাতীয় দলে পারফর্ম করেছেন মদ্র্রিচ। এজন্য ব্যালন ডি’অর জেতার দৌড়ে তিনিই রয়েছেন এগিয়ে। সেখানে তার প্রতিদ্বন্দি কিলিয়ান এমবাপে ও রাফালে ভারানে। রয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো ও আতোয়ান গ্রিজমানদের মতো তারকাও।

প্যারিসে বাংলাদেশ সময় আজ সোমবার রাতে এক জমাকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যালন ডি’অর বিজয়ীর হাতে তুলে দেবেন আয়োজকরা। তার আগেই নাকি ঐ পুরস্কার পাচ্ছেন মদ্রিচ জেনে গেছেন অনেকেই। তাই তাকে শুভেচ্ছা জানাতে প্যারিসে যাচ্ছেন রিয়ালের ৪ প্রতিনিধি। তারা হলেন, সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ, অধিনায়ক সার্জিও রামোস, রবার্তো কার্লোস ও রাউল গঞ্জালেস। উল্লেখ্য, গত বছর ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর জয়ের সময়ও তার সফরসঙ্গী হয়ে প্যারিসে গিয়েছিল রিয়ালের ৪ প্রতিনিধি।

এরদিকে এবারের ব্যালন ডি’অরের সম্ভাব্য বিজয়ী মদ্রিচকে শুভেচ্চা জানানোর জন্য প্রস্তুত তার পুরো পরিবারও। এরই মধ্যে ক্রোয়েশিয়া থেকে তারা পৌঁছেছে রিয়ালে। এখন প্রস্তুতি নিচ্ছে মদ্রিচের সঙ্গে প্যারিসে যাওয়ার। ক্লাব এবং পরিবারের সদস্যদের এই প্রস্তুতিই স্পষ্ট করে বলে দিচ্ছে কে পাচ্ছেন ব্যালন ডি’অর।

শেষ পর্যন্ত যদি আজ বাংলাদেশ সময় রাতে ব্যালন ডি’অর জেতেন মদ্রিচ। তাহলে গত এক দশক ধরে এ পুরস্কারে আধিপত্য শেষ হবে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here