চট্টগ্রাম টেস্টে উইন্ডিজের সব কয়েকটি উইকেট উঠেছিল বাংলাদেশি স্পিনারদের ঝুলিতে। একমাত্র পেসার হিসেবে খেলা মুস্তাফিজুর রহমান দুই ইনিংস মিলিয়ে বল করেছেন মাত্র চার ওভার। থাকেন উইকেটশূন্য। স্পিনারদের প্রদর্শিত শক্তি বাংলাদেশকে এতটাই তৃপ্তি দিয়েছিল যে, প্রথম টেস্টের মতো দ্বিতীয় টেস্টেও বাংলাদেশের একাদশ সাজানো হয় চার স্পিনার নিয়ে।

অবাক করার মতো বিষয়, দ্বিতীয় টেস্টে কোনো পেসারকেই দলে রাখেনি বাংলাদেশ। যা বাংলাদেশের টেস্ট ইতিহাসে প্রথম। উইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে কোর্টনি ওয়ালশেরও তাই তেমন কিছু করার ছিল না। তবে এতে সমস্যার কিছু দেখছেন না জাতীয় দলের এই পেস বোলিং কোচ। বরং দলের জয়টাই তার কাছে আগে।

সোমবার বিকেলে হোটেল সোনারগাঁওয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে ক্যারিবীয় এই পেস কিংবদন্তি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য তো টেস্ট জয়। যে ধরনের উইকেটে আমরা খেলছি, সেই উইকেটে ম্যাচ জয়ের মতো কম্বিনেশনটাই বেছে নিতে হবে আমাদের। আমি এতে সব সময়ই খুশি।’

উদাহরণ হিসেবে নিজেদের সময়কার কথা মনে করিয়ে দেন উইন্ডিজের সাবেক এই গতিতারকা। তার ভাষ্য, ‘একসময় তো উইন্ডিজ যখন রাজত্ব করত, চার ফাস্ট বোলার নিয়ে খেলত। এখন বাংলাদেশ চারজন স্পিনার নিয়ে দাপট দেখাচ্ছে। এটা ধারা। উইকেট কখনো পেসারদের সহায়ক ছিল না। আমরা ভেবেছি স্পিনাররা ভালো ভূমিকা রাখতে পারবে এবং আমাদের সিদ্ধান্তই সঠিক।’

সাদা পোশাকে দেড় যুগের পথচলায় মিরপুর টেস্টটি ছিল বাংলাদেশের ১১২তম ম্যাচ। কিন্তু বিশেষজ্ঞ পেসার ছাড়া একাদশ এটাই প্রথমবার। এর আগে এক পেসার নিয়ে খেলার অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশের। প্রথম টেস্টেও একমাত্র পেসার হিসেবে একাদশে ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। কিন্তু দ্বিতীয় টেস্টে রান তোলার ওপর জোর দিয়ে ভরসা রাখা হয় স্পিনারদের ওপর।

পেসারহীন একাদশ সাজিয়ে বাংলাদেশ কোনো ভুল বার্তা দেয়নি উল্লেখ করে ওয়ালশ বলেন, ‘দেখুন পেসার ছাড়া তো মাত্র একটি ম্যাচ খেলা হলো। ফিজ (মুস্তাফিজুর রহমান) আগের ম্যাচটি খেলল। এর আগে ফিজ ও খালেদ একই টেস্টে খেলেছে। ঢাকা টেস্টে এটা করা হয়েছে শুধু টেস্ট সিরিজ জয়ের জন্য। আমার মতে, এটা কোনো ভুল বার্তা দিচ্ছে না।’

ওয়ালশ নিজেও মানছেন, খেলার সুযোগ না পাওয়ায় হতাশ হতে পারেন পেসাররা। তবে মানসিকভাবে শক্ত থেকে তাদের আরও ঘাম ঝরানোর তাগিদ দিয়েছেন তিনি। শিষ্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘খেলতে না পারায় ওরা হতাশ হতে পারে। তবে এটাই দুনিয়ার শেষ নয় কিংবা পথের শেষ নয়। একটা টেস্ট সিরিজ জিতেছি আমরা, দলের জন্য সবকিছু খুব ভালো গেছে। মানসিকভাবে পেসারদের এখন শক্ত থাকবে হবে, অনুশীলনে আরও মনোযোগী হতে হবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here