মুশফিকুর রহীম ও তামিম ইকবালের সেঞ্চুরিঊর্ধ্ব ইনিংসে ভর করে বড় স্কোরের পথেই ছিল বাংলাদেশ।

কিন্তু দ্রুত তাদের বিদায়ে তাতে শঙ্কা জাগে। মাঝে আবার টাইগারদের সেই স্বপ্ন দেখান সাকিব আল হাসান।

শেষ দিকে অবশ্য এ বাঁহাতি দ্রুত রান তুলতে গিয়ে ফিরেন। তারপরও ঐ তিন ক্রিকেটারের হাফসেঞ্চুরিতে স্বাগতিকরা পেয়েছে লড়াইয়ের পুঁজি।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ।

সাকিব আল হাসান (৬৫) মুশফিকুর রহীম (৬২) ও তামিম ইকবালের (৫০) হাফসেঞ্চুরিঊর্ধ্ব ইনিংসে ভর করে ৭ উইকেটে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৫৫ রান করেছে টাইগাররা।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে উইন্ডিজ পেসার ওশানে থমাসের বল পায়ে লাগলে চোট নিয়ে মাঠ ছাড়েন লিটন দাস। এরপর তাকে স্ক্যান করানোর জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে আবারো ফেরেন ড্রেসিং রুমে। তার আগে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে ওশানে থমাসের বলে খোঁচা দিলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন  ইমরুল কায়েস (০)। দলীয় ১৪ রানের মাথায় বাংলাদেশ প্রথম উইকেট হারায়। এরপর জুটি গড়েন তামিম-মুশফিক। মুশফিক ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৩২তম ফিফটি পান, আর তামিম ৪৩তম ফিফটির দেখা পান। ১১১ রানের জুটি গড়ে ফেরেন তামিম। দেবেন্দ্র বিশুর বলে কেমার রোচের তালুবন্দি হওয়ার আগে তামিম ৬৩ বলে চারটি চার আর একটি ছক্কায় করেন ৫০ রান।

বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির জুটি গড়েন তামিম-মুশফিক। ১১২ বলে শতরান স্পর্শ করা এই জুটি তাদের পঞ্চম শতরানের জুটি। তামিমের পর বিদায় নেন মুশফিক। দলীয় ১৩২ রানের মাথায় ওশানে থমাসের বলে শাই হোপের তালুবন্দি হওয়ার আগে মুশফিক ৮০ বলে পাঁচটি বাউন্ডারিতে করেন ৬২ রান। বাংলাদেশ তৃতীয় উইকেট হারায়। দলীয় ১৯৩ রানের মাথায় বিদায় নেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (৩০)। তার ৫১ বলের ইনিংসে ছিল তিনটি বাউন্ডারি। থমাসের তৃতীয় শিকারে বিদায় নেন সৌম্য সরকার (৬)। এরপর আবারো ব্যাট হাত নামেন লিটন দাস। সাকিব ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৪০তম ফিফটি তুলে নেন। বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি লিটন, ব্যক্তিগত ৮ রানে বিদায় নেন তিনি। দলীয় ২৩৪ রানের মাথায় বাংলাদেশ ষষ্ঠ উইকেট হারায়।

ইনিংসের ৪৭তম ওভারে কেমার রোচের বলে বোল্ড হন সাকিব। দলীয় ২৩৯ রানের মাথায় বিদায় নেওয়ার আগে সাকিব ৬২ বলে ছয়টি চার আর একটি ছক্কায় ৬৫ রান করেন। মাশরাফি বিন মর্তুজা (৬) এবং মেহেদী হাসান মিরাজ (১০) অপরাজিত থাকেন।

আগের ম্যাচে মাঠে নেমে ক্যারিয়ারের ২০০তম ওয়ানডের মাইলফলক ছুঁয়েছেন ওয়ানডে দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে মাঠে নেমে আরেক কীর্তি গড়লেন তিনি। দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৬৯টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দেন সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন। এই ম্যাচের আগ পর্যন্ত ৬৮টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। এবার উইন্ডিজদের বিপক্ষে এই ম্যাচে হাবিবুলের অধিনায়কত্বের রেকর্ড ছুঁলেন মাশরাফি।

আরেকটি মাইলফলক হয়েছে এই ম্যাচে। বাংলাদেশের জার্সিতে এর আগে একসঙ্গে ৯৯টি ওয়ানডেতে মাঠে নেমেছেন দলের পাঁচ সিনিয়র ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। উইন্ডিজদের বিপক্ষে এই ম্যাচে একসঙ্গে শততম ম্যাচে মাঠে নামার কীর্তি গড়লেন দলের এই ‘পঞ্চপাণ্ডব’। এই ম্যাচে আগের একাদশ নিয়ে খেলছে বাংলাদেশ। উইন্ডিজ একাদশে এসেছে একটি পরিবর্তন। কিয়েরন পাওয়েলের বদলে এই ম্যাচে নেমেছেন চন্দরপল হেমরাজ। এই ম্যাচে জয় পেলেই এক ম্যাচ হাতে রেখে ২-০ তে সিরিজ জিতবে মাশরাফি-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহরা।

ওয়ানডেতে সব শেষ পাঁচ ম্যাচের মাত্র একটিতে হেরেছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে, নিজেদের খেলা সব শেষ ৫ ম্যাচের একটিতে জয়, একটিতে ড্র আর বাকি তিনটিতেই হেরেছে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এরই মধ্যে বাংলাদেশ ২৩টি ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে। ঘরের মাঠেই জিতেছে ১৮টি সিরিজ। আর অ্যাওয়ে সিরিজে পাঁচবার সিরিজ জয়ের স্বাদ নিয়ে এসেছে। তবে পরিসংখ্যানের দিকে তাকালে টাইগারদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে থাকবে উইন্ডিজরা। ১৯৯৯ সালের পর থেকে বাংলাদেশ মোট ৩২ ওয়ানডে ম্যাচে উইন্ডিজের মুখোমুখি হয়েছিল। যেখানে জয়ের পাল্লা ভারী ক্যারিবীয়ানদের দিকে। ২০ ম্যাচে জিতেছিল ক্যারিবিয়ানরা। আর বাংলাদেশের জয় আছে ১০টি তে। বাকি দুটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়।

বাংলাদেশ একাদশ:

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন এবং মোস্তাফিজুর রহমান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ:

রোভম্যান পাওয়েল (অধিনায়ক), চন্দরপল হেমরাজ, শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), ড্যারেন ব্রাভো, মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমেয়ার, রোস্টন চেজ, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ, কেমো পল এবং ওশান থমাস।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here