শিশুদের অধিকার রক্ষায় এবং ক্রিকেট খেলায় তাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে ইউনিসেফ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এক উন্নয়ন ও প্রচারণা অংশীদারিত্ব শুরু করলো। বিসিবির আন্তর্জাতিক চ্যারিটি অংশীদার হিসেবে মনোনীত হয়েছে ইউনিসেফ এবং চুক্তি অনুযায়ী বিশ্বখ্যাত ইউনিসেফ লোগো এখন থেকে বাংলাদেশ জাতীয় দলের (পুরুষ, মহিলা ও অনূর্ধ্ব-১৯) জার্সিতে শোভা পাবে। এই প্রথমবারের মতো মা ও শিশুর প্রতীক সম্বলিত এই লোগো আন্তর্জাতিক কোনো ক্রিকেট দলের জার্সিতে স্থান পেতে যাচ্ছে। এটা জাতিসংঘের এই প্রতিষ্ঠানের জন্যও একটি মাইলফলক।

এই চুক্তি সাক্ষর অনুষ্ঠানে থাকার কথা ছিল সাকিব আল হাসানের। তিনি থাকতে পারেননি, তবে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ইউনিসেফের সঙ্গে দুই বছরের একটি চুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। সেই চুক্তি অনুযায়ী এখন থেকে সাকিব-তামিমদের জার্সিতে থাকছে ইউনিসেফের লোগো। জাতিসংঘের অধীনে এই সংস্থাটি এই প্রথম কোনো জাতীয় দলের সঙ্গে এমন চুক্তি করল।

ফুটবল দলে ইউনিসেফের লোগো বিরল কিছু। কয়েক বছর আগেও বার্সেলোনার জার্সিতে কোনো স্পন্সর ছিল না। সে সময় জাভি-মেসিদের শার্টে শোভা পেত শুধু ইউনিসেফের লোগো। বাংলাদেশ ফুটবল দলের জার্সিতেও এখন থেকে তা দেখা যাবে। আজ বিসিবির সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছে তাতে উপস্থিত ছিলেন বিসিবি সিইও নিজাউদ্দিন চৌধুরী সুজন ও ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি এডওয়ার্ড বেগবেদার।

শুধু ছেলেদের জাতীয় ক্রিকেট দল নয়, মেয়েদের ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলেও এই লোগো থাকবে। এখন থেকে বিশেষ করে অনূর্ধ্ব-১৮ মেয়েদেরসহ শিশু-কিশোরদের ওপর জোর দিয়ে বিসিবির ক্রিকেট কার্যক্রমের অংশীদার হবে ইউনিসেফ।

অনুষ্ঠানে ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি বেগবেদার বলেছেন, আগেও বিসিবি ও ইউনিসেফের মধ্যে বেশ কিছু কর্মসূচি সাফল্যের সঙ্গে হয়েছে। নতুন এই চুক্তির মাধ্যমে ক্রিকেট আরও বেশি সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কাছে পৌঁছাবে বলে আমরা আশা করি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here