গত মৌসুমে একমাত্র লেভান্তেই হারের তিক্ত স্বাদ দিয়েছিলো বার্সেলোনাকে। শেষ মুহূর্তের গোলে চমকে দিয়ে তারা ম্যাচ জিতে ৫-৪ গোলে। রবিবার রাতে সেই দলটিই যখন সামনে তখন চিরাচরিত ফরম্যাশন ভেঙে ৩-৫-২-এ সাজান বার্সা কোচ এরনেস্তো ভালভারদে। এমন ফরম্যাশন আর মেসির চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্সে এবার আর তাদের সামনে দাঁড়াতে পারেনি লেভান্তে। লা লিগায় তারা উড়ে গেছে ৫-০ গোলে।

ঘরের মাঠে রোববার অবশ্য এগিয়ে যাওয়ার প্রথম সুযোগ পেয়েছিল লেভান্তে। কিন্তু ম্যাচের ৩২তম মিনিটে ঘানার ফরোয়ার্ড এমানুয়েল বোয়াটেংয়ের শট ক্রসবারে লেগে ফেরে। তবে তিন মিনিট পর এগিয়ে যেতে ভুল করেনি বার্সেলোনা। মেসির বাড়ানো বল ধরে ভলিতে প্রতিপক্ষের জালে জড়িয়ে দেন সুয়ারেজ। বিরতির আগে ব্যবধান দ্বিগুন করে মেসি। সার্জিও বুসকেতসের বাড়ানো বল ধরে দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে পেছনে ছুটে আসা ডিফেন্ডারকে কোনো সুযোগ না দিয়ে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে বল নির্দিষ্ট গোন্তব্যে পেঁছে দেন আর্জেন্টিনার এ ফরোয়ার্ড।

বিরতির পর শুরুতেই বার্সেলোনার ব্যবধান ৩-০ করেন সেই মেসি। এবার পাল্টা আক্রমণে বল পায়ে সুয়ারেজ দ্রুত দেন জর্দি আলবাকে। স্প্যানিশ এই ডিফেন্ডারের পাস ডি-বক্সে পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় বাঁ পায়ের শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। এর কিছুক্ষণ পরই আর্তুরো ভিদালের সহয়তার হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মেসি। তাতে জয়ের পথ অনেকটাই নিশ্চিত হয় বার্সেলোনার।

এদিকে ম্যাচের ৭৬তম মিনিটে উসমান ডেম্বেলেকে বিপজ্জনকভাবে ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন এরিক কাবাকো। তবে ম্যাচের ৮৮তম মিনিটে মেসির পাস পেয়ে এক জনকে কাটিয়ে বাঁ পায়ের শটে লেভান্তের জালে শেষবার বল জড়িয়ে দেন পিকে। তাতে বার্সেলোনা পায় ৫-০ গোলের বড় জয়।

এ জয়ে লা লিগায় ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বার্সেলোনা। গোল ব্যবধানে এগিয়ে দুইয়ে সেভিয়া। চতুর্থ স্থানে রিয়াল মাদ্রিদ। অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের অবস্থান তিনে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here