গণফোরাকম সভাপতি ও ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোক্তা ড. কামাল হোসেনকে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে জামায়াত নিয়ে প্রশ্নকারী সাংবাদিক ভাস্কর ভাদুড়ীকে কাছে ডেকে অভয় দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিজয় দিবসের আলোচনা শেষে প্রধানমন্ত্রী ভাস্করকে ডেকে নিয়ে তার সঙ্গে কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, ‘তাদের এমন আচরণ এতদিন রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে জানা ছিলো, এখন সারাদেশের মানুষ জানলো’

প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব বাসসকে জানান, ভাস্কর ভাদুরী নিজের জীবনের নিরাপত্তাহীনতার কথা জানালে প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘কোনও হুমকি-ধামকি স্বাধীন, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে বাধা হবে না। নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত না হওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী ভাস্কর ভাদুরীকে আশ্বস্ত করেন।

এর আগে গত শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে (১৪ ডিসেম্বর) স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতের বিষয়ে ড.কামালের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চান ভাস্কর ভাদুড়ী নামের এই সাংবাদিক। তিনি ড. কামাল হোসেনকে প্রশ্ন করেন- নির্বাচন কমিশন যে দলের নিবন্ধন বাতিল করেছে, সেই জামায়াত ইসলামী কীভাবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচন করছে?

প্রশ্নের জবাবে রেগে যান ড.কামাল হোসেন। সেসময় তিনি ঐ সাংবাদিককে উল্টো প্রশ্ন করে বলেন, ‘বেহুদা কথা বলো, কতো পয়সা পেয়েছো এই প্রশ্ন করতে? কার কাছ থেকে পয়সা পেয়েছো? পয়সা পেয়ে শহীদ মিনারে এসে শহীদদের অশ্রদ্ধা করো? শহীদদের কথা চিন্তা করো! চুপ করো চুপ করো!

তিনি আরো বলেন, ‘এই জায়গায় এসব রাজনৈতিক প্রশ্ন করো! তোমার নাম কি? জেনে রাখবো, চিনে রাখবো। যাও! শহীদদের কথা চিন্তা করো, চুপ করো। চুপ করো। খামোশ! অসহ্য!’

এসব প্রশ্নের পর প্রশ্নকর্তা ঐ সাংবাদিকের ব্যক্তিগত পরিচয় এবং কোন প্রতিষ্ঠানে তিনি কাজ করেন তা জানতে চান।

এসময় ড. কামালের সঙ্গে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজা কিবরিয়াসহ ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here