সৌদি আরবের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অঙ্কের বাজেট ঘোষণা করলেন দেশটির বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ। এতে দেশের সামাজিক খাতে ব্যয় বৃদ্ধি করে প্রায় ২৯ হাজার ৫০০ কোটি মার্কিন ডলারের বাজেট ঘোষণা করেছেন তিনি। কর্মকর্তাদের বরাতে এক প্রতিবেদনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে কাতার ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার (১৮ ডিসেম্বর) স্থানীয় সময় আগামী ২০১৯ সালের জন্য বাজেটের নথিতে স্বাক্ষর করেন সৌদি বাদশাহ। সম্প্রতি বিশ্ব বাজারে তেলের দাম ক্রমশ কমতে থাকায় এবারের বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি মার্কিন ডলার।

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে বাদশাহ সালমান বলেন, ‘আমরা অর্থনৈতিক সংস্কার, আর্থিক শৃঙ্খলা অর্জন, স্বচ্ছতা উন্নয়ন এবং বেসরকারি খাতের সক্ষমতা বৃদ্ধিকে এগিয়ে নিতে প্রতিশ্রুতি বদ্ধ।’

এ দিকে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তার ভিশন ২০৩০-এ জানিয়েছিলেন, নাগরিকদের জন্য আরও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে চায় রিয়াদ। তিনি আরও বলেন, ‘তেল বহির্ভূত খাত থেকে আয়ের পরিমাণ ২০১৪ সালের ৩৪০০ কোটি মার্কিন ডলার থেকে চলতি বছরে ৭৭০০ কোটি মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে।’

ধারণা করা হচ্ছে, এই আয়ের পরিমাণ অচিরেই প্রায় ৮৩৫০ কোটি মার্কিন ডলারে গিয়ে দাঁড়াবে। যা দেশের মোট রাজস্ব আয়ের প্রায় এক তৃতীয়াংশ।

অপরদিকে দেশটির অর্থমন্ত্রী মোহাম্মদ আল-জাদান এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘সরকারি ঋণের পরিমাণ বর্তমানে জিডিপির প্রায় ১৯ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় ২১ দশমিক ৭ শতাংশে পৌঁছাতে পারে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here