টানা তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জয়ের স্বাদ পেয়েছিল স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ। এবার ক্লাব বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতে নিলো স্প্যানিশ জায়ান্টরা। শনিবার (২২ ডিসেম্বর) রাতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দল আল আইনকে ৪-১ গোলে হারিয়ে অনন্য এক কীর্তি গড়লো তারা। ইতিহাসের প্রথম কোনো দল হিসেবে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের রেকর্ড গড়লো লস ব্লাঙ্কোসরা।

ক্লাব বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ তিনবার শিরোপা জয়ের রেকর্ড ছিল স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনার। গত আসরের ফাইনালে ব্রাজিলের ক্লাব গ্রেমিওকে রুখে দিয়ে শিরোপা জিতে নেয় রিয়াল। আর তাতেই বার্সার রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলে তারা। এবারের শিরোপা জয়ে বার্সাকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ চারবার শিরোপাটি জয়ের রেকর্ড গড়েছে মদ্রিচ-রামোসরা।

একই ম্যাচে দারুণ এক রেকর্ডের মালিক হলেন জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুস। ইতিহাসের প্রথম ফুটবলার হিসেবে সর্বোচ্চ পাঁচবার ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ ট্রফি জিতলেন তিনি। এর মধ্যে রিয়ালের জার্সিতেই জিতেছেন চারবার (২০১৪, ২০১৬, ২০১৭ ও ২০১৮)। আর ২০১৩ সালে বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ শিরোপা জেতেন তিনি।

শনিবার ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্বক ফুটবল খেলে রিয়াল। সুফলও দলটি পেয়ে যায় ১৪তম মিনিটে লুকা মদ্রিচের কল্যাণে। করিম বেনজেমার কাটব্যাক করা বল প্রথম ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের জোরালো শটে প্রতিপক্ষের জালমুখ খোলেন ক্রোয়েশিয়ার এ মিডফিল্ডার। রিয়ালের হয়ে কোনো ফাইনালে এটাই তার প্রথম গোল।

বিরতির আগে ব্যবধান বাড়ানোর বেশ কয়েকবারই সুযোগ পেয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় ঐ সময়ে আর জালের দেখা পায়নি ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা। তবে ম্যাচের ৬০তম মিনিটে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে জোরালো শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মার্কোস লরেন্তে। এদিকে ৭৯তম মিনিটে কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে জোরালো হেডে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে দেন সার্জিও রামোস। সে সময় জয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল সোলারির শিষ্যদের।

এদিকে ম্যাচের ৮৬তম মিনিটে হেডে ব্যবধান কমান আল আইনের জাপানিজ ডিফেন্ডার শিওতানি। তাতে অবশ্য কোন ক্ষতি হয়নি রিয়ালের। উল্টো যোগ করা সময়ে ইয়াহিয়া নাদেরের আত্মঘাতী গোলে বড় জয় নিয়ে শিরোপা উল্লাসে মাতে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর ক্লাবটি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here