শুধু এটুকুই নয়, স্বামী বিবেকানন্দকে নিজের গুরু হিসেবে মানেন অভিনেত্রী। ১২ কি ১৩ বছর বয়সে বিবেকানন্দর বই পড়া শুরু করেন কঙ্গনা রানাওয়াত। আর সেই থেকেই তাঁর ভক্ত হয়ে ওঠা। দমদম ফিল্ম ফেস্টিভালের উদ্বোধনে এসে এমনটাই বললেন জাতীয় পুরস্কার জয়ী এই অভিনেত্রী। চার বছরে পা দিল এই ফেস্টিভাল। কঙ্গনা ছাড়াও এইদিন উপস্থিত ছিলেন নির্মল ঘোষ, সৌগত রায়, ব্রাত্য বসু, পাচু রায় প্রমুখ।

অভিনয় জীবনেও যা শিখেছেন সেখানেও রয়েছে এক বাঙালির অবদান। অনুরাগ বসুর হাত ধরে বলিউডে প্রবেশ আর তাঁর হাত ধরেই ফিল্মের খুটিনাটি শেখা। স্বীকার করলেন কঙ্গনা। আরও বললেন তিনি,  “ভেটকি মাছ থেকে শুরু করে মিষ্টি দই, এই সবকিছুর সঙ্গেও আমার পরিচয় করিয়ে দেন অনুরাগ বসু।” হাসিতে ফেটে পড়ে পুরো অডিটোরিয়াম।

বাংলাকে চেনা যায় চারটে জিনিস দিয়ে, বললেন কঙ্গনা। “কালচার, আর্টস, মিউজ়িক আর ফুড, বাংলাকে ভাবতে গেলে এই বিষয়গুলোই মনে পড়বে।” বাংলার ব্যাপারে বেশ উচ্ছ্বসিত তিনি। ফিল্ম ফেস্টিভাল প্রসঙ্গে কঙ্গনা বললেন, “ধন্যবাদ জানাব ব্রাত্য বসুকে। বাংলা থেকে শুরু করে জার্মান, কোরিয়ান, স্প্যানিশ- সব ধরনের ছবি রয়েছে দেখলাম এই ফেস্টিভালে। এত সুন্দরভাবে তিনি  বেছেছেন ফেস্টিভালের ছবিগুলোকে, সেটা একটা দারুণ ব্যাপার।”

কঙ্গনা কথা বললেন ‘মনিকর্নিকা’ নিয়েও। বললেন, “জিশু বাংলায় কথা বললে আমার শুনতে ভালো লাগত। ওঁর সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা খুবই ভালো।”

আর কী বললেন তিনি? জানতে দেখুন ভিডিয়ো।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here