চিকিৎসায় গাঁজা ও ক্রাতমকে (স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত উদ্ভিদ, যা ব্যাথানাশক ও উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে) বৈধতা দিয়ে মঙ্গলবার মাদক আইনে সংশোধনী এনেছে থাইল্যান্ড।

মঙ্গলবার দেশটির বিচার বিভাগের এমন পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার প্রথম দেশ হিসেবে এ ধরনের পদক্ষেপ নিল থাইল্যান্ড। যদিও পার্শ্ববর্তী দেশ মালয়েশিয়াতেও এমন সিদ্ধান্তের বিষয়টি বিবেচনাধীন রয়েছে।

এর আগে চলতি মাসের শুরুর দিকে চিকিৎসায় গাঁজাকে বৈধতা দিয়েছে ওশেনিয়া মহাদেশের দেশ নিউজিল্যান্ড। তবে আইনটি সংশোধনের আগে দেশটিতে এই ধরনের মাদকের ব্যাপারে ব্যাপক কড়াকড়ি ছিল।

গাঁজা ও ক্রাতমকে চিকিৎসায় বৈধতা প্রদানের ব্যাপারে থাইল্যান্ডের জাতীয় আইন পরিষদে ও্ই দিন আইনটি ১৬৬-০ ভোটে পাস হলেও ১৩জন সদস্য ভোট প্রদানে বিরত থাকে।

মাদক আইনে সংশোধনী আনায়নের পর দেশটির রয়্যাল প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, চিকিৎসায় ব্যবহারের উদ্দেশে গাঁজা ও ক্রাতম আমদানি, রপ্তানি এবং নিজেদের কাছে রাখা যাবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, গাঁজা ও ক্রাতম অবৈধ মাদক হলেও অনেক রোগীর চিকিৎসার জন্য এর ব্যবহারের প্রয়োজন হয়। বিশ্বের অনেক দেশই বিদ্যমান আইনে সংশোধনী এনে এমন মাদককে বৈধতা দিয়েছে। তবে তা কেবল চিকিৎসার জন্যই।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here