জার্মানির সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল হ্যারাল্ড কুজাত সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনাসংখ্যা কমানো হলে তার দেশের সৈন্যদের নিরাপত্তা বিপন্ন হবে এবং সেক্ষেত্রে জার্মান সেনাদেরকে আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে নেয়া হতে পারে।

তিনি ‘ট্যাগেসপিগাল’ পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যদি আফগানিস্তানে তার বাহিনীকে ছোট একটি কন্টিনজেন্টে পরিণত করে তাহলে আমাদের পক্ষে আর দেশটিতে সেনা মোতায়েন করে রাখা সম্ভব হবে না।”

মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোটের আওতায় আফগানিস্তানে প্রায় এক হাজার ১০০ জার্মান সেনা মোতায়েন রয়েছে যাদের অবস্থান মাজার-ই-শরীফ শহরের কাছে।

দেশের বাইরে জার্মান সেনা মোতায়েনের জন্য দেশটির পার্লামেন্টের অনুমোদন প্রয়োজন হয়। আফগানিস্তানে সেনা মোতায়েন রাখার অনুমোদনের বর্তমান মেয়াদ ২০১৯ সালের মার্চ মাসে শেষ হবে।

সাবেক জার্মান প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরো বলেছেন, আফগানিস্তানে মোতায়েন জার্মান সেনাদের নিরাপত্তা রক্ষার প্রয়োজনীয় গ্যারান্টি না দিলে সেখানে সেনা মোতায়েন অব্যাহত রাখার প্রশ্নই উঠবে না।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত সপ্তাহে আফগানিস্তান থেকে সাত হাজার মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। এই নির্দেশ বাস্তবায়িত হলে আফগানিস্তানে মোতায়েন বর্তমান মার্কিন সেনাসংখ্যা অর্ধেকে নেমে আসবে।

জার্মানি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিলস অ্যান্নেনও ট্রাম্পের এ ঘোষণার ব্যাপারে হতাশা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, ট্রাম্প প্রশাসন যৌথ কাজের ব্যাপারে আমেরিকার মিত্র দেশগুলোর সঙ্গে পরামর্শ করার প্রয়োজন মনে করছে না।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here