বড় দিনের ছুটিতে জন্মভূমি রোজারিওতে স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জো আর তিন সন্তান থিয়াগো, মাতেও ও চিরোকে দারুণ সময় কাটছে মেসির। তারই এক ফাঁকে বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন এ ফরোয়ার্ড স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’কে জানিয়েছেন তিন ছেলের পর এখন একটি ফুটফুটে মেয়ে চাই।

২০১২ সালে মেসি-রোকুজ্জো দম্পতির কোলজুড়ে আসে বড় সন্তান থিয়াগো। তিন বছর পর জন্ম নেয় মাতেও এবং এর তিন বছর পর তাদের ঘর আলো করে এল তৃতীয় ছেলে চিরো। গত বছর বিয়ের বন্ধনে জড়ানো এই দম্পতি কিন্তু মনে মনে কামনা করে আসছিল মেয়ে সন্তান। যা এতদিন পর নিজ মুখেই স্বীকার করেছেন মেসি, ‘চিরো তো কেবল হাঁটা শিখল। আনতোনেল্লা (রোকুজ্জো) ও আমি একটি মেয়ে চাই। সে জন্য সময় আছে, দেখা যাক কি হয়।’

এতদিন সবাই জানত ফুটবলই মেসির জীবন। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেই ধারণায় এসেছে পরিবর্তন। কেননা এ আর্জেন্টিনা ফরোয়ার্ড জীবনে ফুটবলের জায়গা দখল করেছে পরিবার। তবে ফুটবল এখনো মেসির ভালোবাসার জায়গা—সে কথাও জানিয়েছেন তিনি, ‘সন্তানদের মুখ দেখার পর থেকে পরিবারই আমার অগ্রাধিকার। এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ফুটবল অবশ্যই ভালোবাসি তবে পরিবার সবার ওপরে।’

বার্সা হারলে এক সময় ঘরে ফুটবল নিয়ে কথা হতো না। কিন্তু এখন দিন বদলেছে। ফুটবল নিয়ে ভীষণ আগ্রহী বড় ছেলে নানা রকম প্রশ্নবাণে জর্জরিত হতে হয় মেসিকে, ‘সেটি বেশ আগের কথা। এখন আর তেমন হয় না। হার মেনে নেওয়া সব সময় কষ্টকর। থিয়াগো আমাকে কথা বলতে বাধ্য করে। হারের কারণ বিশ্লেষণ করতে বলে। আমরা ফুটবল নিয়ে অনেক কথা বলি। বয়সে একটু বড় হওয়ায় থিয়াগো বাকিদের চেয়ে খেলাটা একটু ভালো বোঝে। ফুটবলের প্রায় সবকিছু নিয়েই সে আমার সঙ্গে কথা বলে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here