ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টোনোর মধ্য দিয়ে শেষ হয়ে গেলো আরও একটা বছর, ইতি ঘটলো ২০১৮ সালের। নতুন বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে পা দিয়ে শুরুতেই একটা দুঃসংবাদের সঙ্গী হতে হলো বাংলাদেশ দলকে। কেননা আগামী ২০২০ সালে বসতে যাওয়া আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সরাসরি অংশগ্রহণ করা হচ্ছে না টাইগারদের। মূল পর্বে জায়গা করে নিতে হলে আগে উৎরাতে হবে বাছাইপর্বের বাধা।

বিষয়টা অনেকটা অনুমেয় ছিলো আগেই। নিজেদের প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতে বেশখানিকটা এগিয়ে থাকলেও ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট টি-টোয়েন্টির পরিসংখ্যা কথা বলে না বাংলাদেশের হয়ে। যেকারণে কুঁড়ি ওভারি সংস্করণে অনেকটা তলানিতেই অবস্থান সাকিব আল হাসানের দলের। এমনকি ৭৭ রাটিং পয়েন্ট নিয়ে র‍্যাংকিংয়ের দশ নাম্বারে অবস্থান করা বাংলাদেশের থেকে ১৫ রেটিং বেশি নিয়ে দুই ধাপ এগিয়ে অবস্থান করছে আফগানিস্তান।

তাইতো ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিং এর অবস্থান অনুযায়ী শীর্ষে থাকা আট দল পেয়েছে সরাসরি বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ। যেখানে ওয়ানডে বিশ্বকাপের জন্য বাছাইপর্ব পার করে মূল পর্বে আসে আফগানিস্তান ও উইন্ডিজ এই ফরম্যাটে সরাসরি খেলার সুযোগ পেলেও নিজেদেরকে প্রমাণ দিয়েই বিশ্বকাপে অংশ নিতে হবে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের।

অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর। এতে অংশ নিবে সর্বমোট ১২ টি দল। র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষ আটের পাশাপাশি থাকবে আরও চার দল। যেখানে নয় ও দশ নম্বরে থাকা দুই দলকে বিশ্বকাপের মূল লড়াইয়ের পূর্বে খেলতে হবে গ্রুপ স্টেজ। আইসিসি টি-টোয়েন্টি কোয়ালিফায়ার থেকে ছয়টি দল উঠে আসবে। তাদের সাথে সেরা-১২ এর লড়াইয়ে নামতে হবে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশকে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এই টি-টোয়েন্টির বিশ্ব আসর। যেখানে সরাসরি অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়েছে; পাকিস্তান, ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, উইন্ডিজ ও আফগানিস্তান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here