ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট টি-টোয়েন্টি মানেই মারকাটারি ব্যাটিং, ব্যাটসম্যানদের আধিক্য। তবে এতে একেবারে কম যান না বোলারাও, এবার এই ফরম্যাটের ফ্র‍্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে বলহাতে তেমনই এক রেকর্ড গড়ে বসলেন নিউজিল্যান্ডের বোলার কাইল জ্যামিসন। আর এতেই বিশ্বরেকর্ডে নাম তুললেন সাকিব-মালিঙ্গাদের পাশে।

নিউজিল্যান্ডে শুরু হয়েছে ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের আসর সুপার স্ম্যাশ ২০১৮-১৯ মৌসুমের খেলা। সেখানেই টুর্নামেন্টের নবম ম্যাচে খেলতে নেমিছিলো দুই দল অকল্যান্ড ও ক্যান্টারবুরি। ম্যাচে টসে জিতে শুরুতেই প্রতিপক্ষ অকল্যান্ডকে আগে ব্যাটিং পাঠাই ক্যান্টারবুরি। এরপরই যেন বলহাতে নিজের ধ্বংসলীলা শুরু করেন কাইল জ্যামিসন। মাত্র ৭ রান খচরাতেই একে একে তুলে নেন প্রতিপক্ষের ৬ ব্যাটসম্যানকে।

নিজের প্রথম ও ইনিংসের তৃতীয় ওভারে প্রথমবারের মত বল হাতে এসে দ্বিতীয় বলেই দেখা পান উইকেটের। এরপর ওই ওভারে আর কোন সাফল্য না আসলেও নিজের দ্বিতীয় ওভারে হ্যাটট্রিকের সুযোগ তৈরি করেন জ্যামিসন, তবে ভাগ্য সহায় না হলেও সেই ওভার থেকে ৩ উইকেট আসে ডানহাতি এই পেসারের। সুযোগ তৈরি করেছিলেন দলীয় ১৮ তম ওভারেও, কিন্তু হয়নি এই যাত্রাতেও। তবে এই ওভারেও পেয়েছেন ৩ উইকেটের দেখা।

আর এরই কল্যাণে ম্যাচে নির্ধারিত ৪ ওভারের কোটা শেষে মাত্র ৭ রান খরচাতে ৬ উইকেট তুলে নিয়ে রেকর্ড বইতে ঢুকে যান জ্যামিসন। এমন দুর্দান্ত বোলিং করে ২৪ বছর বয়সী এই পেসার ছুঁয়ে ফেলেন শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গাকে। ২০১২ সালে বিগ ব্যাশে মেলবোর্ন স্টার্সের হয়ে পার্থ স্কর্চার্সের বিপক্ষে ৭ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন মালিঙ্গাও। এই দুজনের উপরে আছেন কেবল সাকিব ও সুপিয়াহ।

২০১৩ সালে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টসের হয়ে ত্রিনবাগো অ্যান্ড টোবাগো রেড স্টিলের বিপক্ষে ৬ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন সাকিব। আর ২০১১ সালে ইংল্যান্ডের ফ্রেন্ডস লাইফ টি-টোয়েন্টিতে সমারসেটের হয়ে গ্লামরগনের বিপক্ষে ৫ রানে ৬ উইকেট নেন ইংল্যান্ডের সুপিয়াহ।

তবে বিশ্বরেকর্ডে সাকিব-মালিঙ্গাদের সঙ্গী হতে হলেও নিজ দেশের ইতিহাসে অবশ্য চূড়াতেই বসলেন জ্যামিসন, টপকে গেলেন স্পিনার ইশ সোধিকে। ২০১৭ সালে বিগ ব্যাশে অ্যাডিলেডের হয়ে ১১ রানে ৬ উইকেট নিয়ে এতোদিন ধরে এই রেকর্ডের মালিক ছিলেন সোধি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here