বিপিএলের গেল আসরের শুরুটা মোটেও আশা জাগিনা করতে পারেনি মাশরাফির রংপুর রাইডার্স। টানা চার ম্যাচ হারের পর পঞ্চমটিতে এসে বহু প্রত্যাশিত জয়টি তুলে নিতে পেরেছিলো সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে। সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েই এবারের আসরের শুরুটা ভাল করতে চাইছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সাইড। সেটা অন্য কিছু নয়, শুরুটা দুর্দান্ত করা।

শুক্রবার (৪ জানুয়ারি) মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে সে কথাই জানালেন রংপুর দলপতি মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা।

ম্যাশ বলেন, ‘আমাদের খুব ভালভাবে শুরু করতে হবে। খারাপও হতে পারে, বাট মেক শিওর করতে হবে যেটা আগের বছর গিয়েছিলো প্রথমে আমরা হারছিলাম পরে কামব্যাক করেছি। সো ওই মানষিকতা থাকতে হবে।’

বিপিএলটা মাশরাফির জন্য একটি মধুর যন্ত্রণারই নামান্তর। তার কারণও আছে। ৫ আসরের ৪টিতেই যেই তার দল চ্যাম্পিয়নে। অর্থাৎ যেখানেই হাত দিয়েছেন সোনা ফলেছে। যন্ত্রনাটিও এখানেই। কেননা প্রতিটি আসরেই তাকে প্রত্যাশার বাড়তি চাপ নিয়ে মাঠে নামনে হয়েছে। ‘অধিনয়াক যেহেতু মাশরাফি এবারও নিশ্চয়ই তার দলই চ্যাম্পিয়ন হবে।’ ভক্তদের এমন গগনচুম্বি প্রত্যাশা চাপ তার ‍ওপর বরাবরই ছিলো। ব্যতিক্রম ছিলো কেবল গেল আসরে। ঢাকা ডায়নামাইটস ডিফেল্ডিং চ্যাম্পিয়ন ছিলো বলে নতুন রংপুরের হয়ে ততটা চাপ অনুভব করেননি এই দলপতি।

এবার কিন্তু সেই চাপটি থাকছেই। যেহেতু তার দল এবারের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সেহেতু মাশরাফি ভক্তরা সন্দেহাতীতভাবেই তার দিকে তাকিয়ে থাকবেন।

আশার কথা হলো ভক্তদের এমন প্রত্যাশার চাপে সংকুচিত হয়ে যাননি ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত মাশরাফি। বরং প্রস্তত তিনি, ‘প্রত্যেকবারই তো এই চাপ নিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করি যে গত বছর চ্যাম্পিয়ন ছিলাম। শুধুমাত্র গেল বছরটি বাদ দিলে প্রত্যেকবারই আমাকে চাপ নিয়ে শুরু করতে হয়। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নের সবসময়ই আলাদা প্রেসার থাকে।’

শনিবার (৫ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টা মিরপুর শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে মুশফিকের চিটাগং ভাইকিংসের মুখোমুখি হবে মাশরাফির রংপুর।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here