দেশের ক্ষুদ্র চাষী এবং মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের সহায়তায় ৫০ লাখ মার্কিন ডলার সহায়তা দেবে জাপান।

এবিষয়ে সোমবার জাপান সরকার ও জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি) একটি চুক্তি সই করেছে।

ডব্লিউএফপির বাংলাদেশ কার্যালয়ে সংস্থাটির বাংলাদেশ প্রতিনিধি ও কান্ট্রি ডিরেক্টর রিচার্ড রাগান এবং বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি চুক্তিতে সই করেন।

ডব্লিউএফপির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত সহায়তা কার্যক্রম চালিয়ে নেয়ার জন্য সংস্থাটির জরুরি ভিত্তিতে পাঁচ কোটি ২০ লাখ মার্কিন ডলার প্রয়োজন।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে রিচার্ড রাগান বলেন, ‘আমরা কক্সবাজারের চলমান সংকটে অব্যাহত সহায়তার জন্য জাপানের জনগণকে ধন্যবাদ জানাই। এই অবদান উদ্বাস্তু জনগণকে আমাদের সহায়তা অব্যাহত রাখতে এবং বাংলাদেশি ক্ষুদ্র চাষীদের সাহায্যে নতুন কর্মসূচি তৈরি করতে সাহায্য করবে।’

এসময় রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি বলেন, ‘এ প্রকল্প থেকে চাষী এবং বাস্তুচ্যুত মানুষ উভয়ে উপকৃত হবে। আমি আন্তরিকভাবে চাই, এ প্রকল্প বাংলাদেশের উন্নয়নে অবদান রাখবে এবং কক্সবাজারে বাস্তুচ্যুতদের সহায়তা করবে।’

জাপানের সহায়তা পটুয়াখালী ও কক্সবাজারে দুই হাজার ক্ষুদ্র চাষীকে সাহায্য করবে। তারা পাবেন জীবিকা নির্বাহে প্রশিক্ষণ, নতুন সরঞ্জাম ও অবকাঠামো।

সহায়তার আরেকটি অংশ মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত জনগণের জন্য ডব্লিউএফপির ই-ভাউচার কর্মসূচি সম্প্রসারণে সাহায্য করবে।

মিয়ানমার থেকে কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া প্রায় এক-চতুর্থাংশ মানুষ ই-ভাউচারের মাধ্যমে সহায়তায় পাচ্ছেন এবং জাপানের কল্যাণে ২১ হাজার মানুষ ১২ মাসের জন্য ই-ভাউচার সহায়তা পাবেন।

রোহিঙ্গা সংকটের শুরুতে জাপান ডব্লিউএফপি বাংলাদেশকে দেড় কোটি মার্কিন ডলার দিয়েছিল, যা প্রয়োজনকালে সময় মতো তহবিলের জোগান দিয়েছিল।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here