বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা দেশের চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন। সোমবার (৭ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টার পর বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ও গোপনীয়তার শপথবাক্য পাঠ করান।

গত ৩০ ডিসেম্বর জনগণের বিপুল ভোটে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চতুর্থবারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পায় আওয়ামী লীগ। পরে রাষ্ট্রপতি তাকে সরকার গঠনের আহ্বান জানান। এর আগে বাংলাদেশে যারা সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের কেউই চারবারের জন্য রাষ্ট্র পরিচালনার সুযোগ পাননি।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার ২১ বছর পর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করলে শেখ হাসিনা ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার বিজয়ী হলে ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয়বার শপথ গ্রহণ করেন তিনি।

এবার ৪৬ সদস্য নিয়ে মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়েছে। নতুন মন্ত্রিসভার সবাই আওয়ামী লীগের। এ সভায় পূর্ণমন্ত্রী থাকছেন ২৪ জন, প্রতিমন্ত্রী ১৯ এবং উপমন্ত্রী ৩ জন। ৩১ জন নতুন মুখের মধ্যে ২৭ জনই প্রথমবারের মতো স্থান পেয়েছেন মন্ত্রিসভায়।

সোমবার শপথ নেয়ার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা বিশ্বের দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতায় থাকা নারীদের ‘এলিট ক্লাবে’ প্রবেশ করেছেন।

বিশ্বের ইতিহাসে চারবার সরকার প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী নারীদের মধ্যে রয়েছেন ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ও জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল। তবে ইন্দিরা গান্ধী চতুর্থবার দায়িত্ব পালন করা অবস্থায় নিহত হন।

বাংলাদেশে চারবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়া ৭২ বছর বয়সী শেখ হাসিনা এ পর্যন্ত সাতবার সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর দেশে নারী নেতৃত্বের ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। একাধিক নারীকে সাংসদ, মন্ত্রী করেছেন। তার সময়ে দেশে প্রথম নারী স্পিকার হয়েছেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here