টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ ভরাডুবির পর শ্রীলঙ্কা তাকিয়ে ছিল একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচের দিকে। কিন্তু শুক্রবার অকল্যান্ডে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত ক্রিকেটেও ভাগ্য ফিরল না লঙ্কানদের। হারই দলটির হয়েছে সঙ্গী। তাতে ১-০ তে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছেন নিউজিল্যান্ড।

সিরিজের একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে শুক্রবার টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে রস টেইলর (৩৩), ডগ ব্রেসওয়েল (২৬ বলে ৪৪) ও স্কট কুগিলিইজিনের (১৫ বলে ৩৫) ব্যাটে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে নিউজিল্যান্ড করে ১৭৯ রান। জবাবে লকি ফার্গেসন (৩/২১) ও ইশ শোধির (৩০/৩) তোপে ১৬.৫ ওভারে লঙ্কানরা গুটিয়ে যায় ১৪৪ রানে। তাতে ৩৫ রানে জিতেছে কিউইরা।

এরআগে দুই ম্যাচে টেস্ট সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতেছিল নিউজিল্যান্ড। পরে তিন ম্যাচে ওয়ানডে সিরিজে সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশের লজ্জা দিয়েছিল কিউইরা।

অকল্যান্ডে টস জিতে ফিল্ডিং নিয়ে দুর্দান্ত শুরু হয়েছিল শ্রীলঙ্কার। প্রথম চার ওভারে লাসিথ মালিঙ্গা ও কাসুন রাজিথার পেসে এলোমেলো নিউজিল্যান্ডে টপ অর্ডার। ৩.৩ ওভারের মধ্যে মার্টিন গাপটিল (১), টিম সেইফার্ট (২), হেনরি নিকোলস (৪) ও কলিন মুনরো (১৬) বিদায় নেন।

২৭ রানে ৪ উইকেট হারানো নিউজিল্যান্ড এই ধাক্কা কাটিয়ে ওঠে রস টেলরের ব্যাটে। মিচেল স্যান্টনার ২৮ রানের জুটি গড়ে ফিরে যান। ডগ ব্রেসওয়েলের সঙ্গে টেলরের ৪৭ রানের সেরা জুটি দলকে ফেরায় পথে।

৩৩ রানে টেলর পেছনে নিরোশান ডিকবেলাকে ক্যাচ দিয়ে থিসারা পেরেরার শিকার হন। তারপর ব্রেসওয়েল ও স্কট কুগেলেইনের ব্যাটিং ঝড়ে লড়াই করার স্কোর গড়ে স্বাগতিকরা। মাত্র ২.৪ ওভারে তাদের জুটি ছিল ৪১ রানের।

২৬ বলে ১ চার ও ৫ ছয়ে ইনিংস সেরা ৪৪ রান করেন ব্রেসওয়েল। অষ্টম উইকেটে অধিনায়ক টিম সাউদিকে নিয়ে ৩৬ রানের আরেকটি ঝড়ো জুটি গড়েন কুগেলেইন। ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ১৫ বলে ১ চার ও ৪ ছয়ে ৩৫ রানে টিকে ছিলেন এই বোলিং অলরাউন্ডার। ১৩ রানে খেলছিলেন সাউদি।

রাজিথা সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন। দুটি পান মালিঙ্গা।

ইনিংসের পঞ্চম বলে সাদিরা সামারাবিক্রমার আউটে হোঁচট খায় শ্রীলঙ্কা। এরপর কুশল পেরেরার ঝড়ে সেই ধাক্কা সামলে ওঠে তারা। ১২ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে ২৩ রানে চতুর্থ ওভারে বিদায় নেন তিনি। পরের ওভারে নিরোশান ডিকবেলা ১৮ রানে ব্রেসয়েলের শিকার হন।

৪৫ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর কুশল মেন্ডিসের সঙ্গে থিসারার ৪৯ রানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় লঙ্কানরা। টিম সাউদি এই জুটি ভেঙে দেন কুশলকে ১৭ রানে ফিরিয়ে। তারপরও থিসারার ব্যাটে লড়াই চালিয়ে যায় সফরকারীরা। কিন্তু ফার্গুসনের জোড়া আঘাতে ভরাডুবি শুরু। ২৪ বলে ২ চার ও ৩ ছয়ে ৪৩ রানে আউট হন থিসারা।

মিডল অর্ডারের এই ধসের পর টেল এন্ডার গুঁড়িয়ে দেন ইশ সোধি। এই স্পিনার তার তৃতীয় ও চতুর্থ ওভারে ৩ উইকেট নিয়ে নিউজিল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন। ১৭তম ওভারে তার জোড়া আঘাতে অলআউট হয় লঙ্কানরা। এই স্পিনারের সমান ৩টি উইকেট নেন ফার্গুসন।

ম্যাচসেরা হয়েছেন ব্রেসওয়েল। ২ ওভারে ১৯ রান দিয়ে একটি উইকেটও নেন তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here