বিপিএলের অভিষেক ম্যাচেই হ্যাটট্রিক,ম্যান অব দ্য ম্যাচ। তাও আবার ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে। তবে শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে জীবনের প্রথম ম্যাচে আলো ছড়িয়েও হাসতে পারছেন না আল ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনেই উঠেছিল প্রশ্ন। বোলিং অ্যাকশনে প্রশ্নটা উঠেছিল সর্বশেষ প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগে। তবে এ প্রশ্নে নিজেকে আড়াল করেছিলেন আল ইসলাম-‘  না আসলে কখনো প্রশ্নবিদ্ধ হয়নি। তবে সবাই আসলে ভাবছিলেন…….। ’

তবে ম্যাচ হেরে রংপুর তুলেছে অভিযোগ। ফ্র্যাঞ্চাইজিটির পক্ষ  থেকে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ‘চার দিন আগে আমাদের অবগত করা হয় যে ড্রাফটের বাইরে থেকেও ক্রিকেটারদের খেলানো যাবে এবং সেই অনুসারে এলিস আল ইসলামকে ঢাকা ডায়নামাইটস অন্তর্ভূক্ত করে। তার বিপিএলে খেলা নিয়ে আমাদের কোনো সমস্যা ছিল না কিন্তু একটি বিষয় উল্লেখ না করলেই নয়; ঢাকা প্রথম বিভাগ লিগ খেলার সময় এলিসের বোলিং অ্যাকশন সন্দেহজনকদের তালিকায় ছিল। আমাদের জানানো হয়েছিল এলিস বোলিং অ্যাকশন শুধরে নিয়েছে। কিন্তু আজকের ম্যাচে তার বোলিং দেখে মনে হয়েছে পুরোপুরি শোধরাতে পারেনি। বিশেষ করে সে যখন দুসরা ডেলিভারি দেয় তখন কনুই ১৫ ডিগ্রির বেশি বেঁকে যায়।’

 ড্রাফট আইনে সংশোধনের সুযোগটা নিয়ে নেট বোলার থেকে ম্যাচ বোলারে প্রমোশন পেয়েও  যে আল ইসলামের ক্যারিয়ারটা হুমকির মুখে পড়লো।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here