ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ বলেছে, ইরানের সঙ্গে ২৮ জাতির এই ইউনিয়নের বাণিজ্যিক সম্পর্কের ওপর নিজের একতরফা সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে পারে না আমেরিকা। শুক্রবার প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে এ মন্তব্য করেছেন ইইউ’র পররাষ্ট্র ও নিরাপত্তা নীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা ফেডেরিকা মোগেরিনি।

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “একটি বিদেশি শক্তি- সে যদি আমাদের ঘনিষ্ঠতম বন্ধুও হয়- তারপরও অন্য কোনো দেশের সঙ্গে আমাদের বৈধ বাণিজ্যিক সম্পর্কের ওপর সে নিজের সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে পারে না।”

ইরানের পরমাণু সমঝোতা রক্ষা করার লক্ষ্যে ইইউ অবশিষ্ট আন্তর্জাতিক সমাজের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। মোগেরিনি বলেন, আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা- আইএইএ তার ১৩টি প্রতিবেদনে একথার সত্যতা নিশ্চিত করেছে যে, ইরান এই সমঝোতা পুরোপুরি মেনে চলছে। কাজেই পরমাণু সমঝোতা বাতিল করার প্রশ্ন ওঠে না।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত বছরের মে মাসে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে তার দেশকে বের করে নেন এবং নভেম্বরে তেহরানের ওপর পূর্ণ মাত্রার নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করেন। কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়ন ওই সমঝোতা রক্ষা করে তেহরানের সঙ্গে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সহযোগিতা চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে। বিষয়টিকে আমেরিকা স্বাভাবিকভাবে নেয়নি এবং এই সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য ইউরোপের ওপর চাপ অব্যাহত রেখেছে ওয়াশিংটন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here