ঢাকা পর্বে সবকটি ম্যাচ জিতেছিলো ঢাকা ডায়নামাইটস। উড়তে থাকা এই ঢাকাকেই সিলেট পর্বে মাটিতে নামিয়েছে রাজশাহী কিংস। শুক্রবার সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ড নৈপুণ্য আর আন্দ্রে রাসেলের শেষ দিকের ঝড়ে জয়ের ধারায় ফিরেছে তারা। সিলেট সিক্সার্সকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস।

ঢাকার লক্ষ্য ১৫৯ রানের। কিন্তু ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের বোল্ড মিজানুর রহমান। ১০ বলে ২০ করে সুনিল নারিনও সাজঘরে। ১৩ বলে ১৩ করলেন রনি তালুকদার।

ঢাকা ডায়নামাইটস ৩৭ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে গিয়েছিল। সেখান থেকে দলকে টেনে তুলেন সাকিব। ৪১ বলে ৮ বাউন্ডারি আর ২ ছক্কায় ৬১ রানের ঝড়ো এক ইনিংস খেলে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ঢাকা অধিনায়ক।

মাঝে ডারওয়াইস রাসোলি ১৯ করে ফেরার পর নেমেছিলেন আন্দ্রে রাসেল। তিনিও সাকিবের মারকাটারি ব্যাটিংয়ে ভালোই সঙ্গ দিয়েছেন। মাত্র ২১ বলে ২ চার আর ৪টি বিশাল ছক্কায় হার না মানা ৪০ করেন ক্যারিবীয় এই ব্যাটসম্যান। সিলেটের হয়ে বল হাতে মোহাম্মদ ইরফান ২টি ও একটি করে উইকেট নেন তাসকিন ও সন্দীপ।

এর আগে, বলতে গেলে দলকে একাই টেনে নিয়েছিলেন ওয়ার্নার। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনারের ৪৩ বলে ৬৩ রানের ঝড়ো ইনিংসে ভর করেই ৮ উইকেটে ১৫৮ রানের চ্যালেঞ্জিং পুঁজি পায় সিলেট সিক্সার্স।

এ নিয়ে চলতি বিপিএলে ৬ ম্যাচ খেলে তিনটি ফিফটি করলেন ওয়ার্নার। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচেও ৩৬ বলে হার না মানা ৬১ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস এসেছিল অস্ট্রেলিয়ান এই তারকার ব্যাট থেকে।

৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ৪২ রান খরচ করলেও ৩টি উইকেট নিয়ে ঢাকা ডায়নামাইটসের সবচেয়ে সফল বোলার আন্দ্রে ব্রিচ। সাকিব নিয়েছেন ২টি। একটি করে উইকেট আন্দ্রে রাসেল, রুবেল হোসেন আর সুনিল নারিনের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

সিলেট সিক্সার্স: ২০ ওভারে ১৫৮/৮ (লিটন ২৭, সাব্বির ১১, আফিফ ১৯, ওয়ার্নার ৬৩, কাপালী ০, পুরান ৬, জাকের ২৫, তাসকিন ১, লামিচানে ০*; রাসেল ১/২০, বার্চ ৩/৪২, সাকিব ২/৩৪, নারিন ১/৩২, আলিস ০/২, রুবেল ১/২৪)।

ঢাকা ডায়নামাইট: ১৭ ওভারে ২৬৩/৪ (মিজানুর ১, নারিন ২০, রনি ১৩, সাকিব ৬১*, রাসুলি ১৯, রাসেল ৪০*; তাসকিন ১/৩২, ইরফান ২/৩৮, লামিচানে ১/২৭, আল-আমিন ০/৩০, কাপালী ০/৩১)।

ফলাফল: ঢাকা ডায়মানাইটস ৬ উইকেটে জয়ী।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here