গত সেপ্টেম্বরে সেভিয়ার বিপক্ষে লা লিগার প্রথম লেগে হেরেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। সেই শোধ নেয়ার সময়টা শনিবার বাংলাদেশ সময় রাতেই পেয়ে গেল দলটি। সেই সুযোগটা দুই হাত ভরেই নিয়েছেন সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর দুই তারকা কাসেমিরো ও লুকা মদ্রিচ। তাদের নৈপুণ্যে অতিথিদের ২-০ গোলে হারিয়ে প্রতিশোধ নিয়েছে সান্তিয়াগো সোলারির দল।

প্রথমার্ধ হতাশায় কেটেছে দুই দলের। ভিনিসিয়াস জুনিয়র শুরুতেই রিয়ালকে এগিয়ে দিতে ব্যর্থ হন সেভিয়া গোলরক্ষকের কারণে। মাঝপথে সের্হিও এসকুদেরো নষ্ট করেন সেভিয়ার সুবর্ণ সুযোগ।

৬ মিনিটে মাঝমাঠ থেকে লুকা মদরিচ বল নিয়ে সামনে এগিয়ে যান। তারপর বল বাড়িয়ে দেন ভিনিসিয়াসের কাছে। এই তরুণ ব্রাজিলিয়ানের দারুণ চেষ্টা লক্ষ্যভ্রষ্ট করে দেন অতিথি গোলরক্ষক থমাস ভ্যাকলিক।

সেভিয়া কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ২২ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো। বেন ইয়েডারের পাসের বল পায়ে নেন এসকুদেরো, তার সামনে কেবল ছিলেন রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়া। কিন্তু সেভিয়া মিডফিল্ডারের আড়াআড়ি শট গোলবারের পাশ দিয়ে চলে যায়।

বিরতির পর প্রথম সুযোগ তৈরি করে রিয়াল। ৫৮ মিনিটে করিম বেনজিমার পাস থেকে ড্যানি কেবায়োস শট নেন লক্ষ্যে। কিন্তু প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে কর্নার হয়। ৬৭ মিনিটে তার শট ক্রসবারে লাগলে আবারও হতাশ হন কেবায়োস।

সের্হিও রেগুইলনের সহায়তায় ৭৪ মিনিটে একটুর জন্য গোলমুখ খুলতে ব্যর্থ হন কাসেমিরো। তার হেড গোলপোস্টের কয়েক ইঞ্চি দূর দিয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। অবশ্য চার মিনিট পর এই ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার গোল উচ্ছ্বাসে মাতান মাদ্রিদ ক্লাবকে। ৭৮ মিনিটে রেগুইলনের অ্যাসিস্টে শক্তিশালী শটে ভ্যাকলিককে পরাস্ত করেন কাসেমিরো। ইনজুরি সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে মদরিচ প্রতিপক্ষের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন।

এই জয়ে ২০ ম্যাচে ৩৬ পয়েন্টে সেভিয়াকে টপকে তিন নম্বরে উঠে এসেছে রিয়াল। এক ম্যাচ কম খেলে বার্সেলোনা (৪৩) তাদের চেয়ে ৭ পয়েন্টে এগিয়ে থেকে শীর্ষে। ১৯ ম্যাচে ৩৮ পয়েন্টে দ্বিতীয় অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here